WikiLeaks: BNP-Jamaat government wanted Rohingya refugees to leave

US ambassador to Yangon Shari (English Woods) Villarosa wrote to Washington on September 29, 2005 describing the condition of the Rohingya people living in Myanmar’s Rakhine State and Bangladesh’s Cox’s Bazar areas.

Shari Villarosa
Shari English Woods Villarosa, former US ambassador to Burma

The cable titled “Rohingya Refugees And Rebels – A View From Outside” is available online. It was coordinated with the US embassy in Dhaka. It is part of hundreds of thousands of diplomatic cables released by whistleblowing website WikiLeaks.

Here is the full text of the document without editing:

1. (C) SUMMARY: Rangoon Poloff traveled to Bangladesh in mid September to visit Rohingya refugee camps and to meet agencies that assist the refugees. Despite living in refugee camps for over a decade amid squalid conditions and sometimes suffering violence and intimidation, very few refugees indicate interest in returning to Burma and the repressive conditions they fled in the early 1990s. Recent discoveries of cached weapons near the border with Burma appear to be old stocks left over from failed insurgencies and not an indication of renewed rebel activity against the GOB or the Bangladesh government (BDG). END SUMMARY.

INHOSPITABLE REFUGEE CAMPS

2. (C) Rangoon Poloff and Political Specialist visited Bangladesh in mid September. Following briefings in Dhaka by IOM, UNHCR and others they traveled with Embassy Dhaka Poloffs to Cox’s Bazaar to visit two official Rohingya refugee camps (Naya Para and Kutu Palong) and another unofficial “makeshift” camp. UNHCR works with the Bangladesh Red Crescent and the BDG to provide minimal necessities to the refugees in the official camps where conditions are purposely kept spartan, as the BDG does not want the refugees to “feel at home” and settle down forever. The Bangladesh police control the refugees by giving selected refugees some authority over the others. Called “majhis,” these refugees frequently rule like the mafia by extorting money and beating refugees into submission.

3. (C) The Bangladeshi camp commander denied Poloffs access to Kutu Palong camp due to a visit by a European ambassador earlier in the year resulting in a riot that the Bangladeshi authorities brutally suppressed, killing at least three refugees and wounding many others. Nevertheless, we managed to meet several refugees at the camp entrance and heard their testimonies.

A HOMESTEAD IN HELL

4. (C) The visit to the unofficial “makeshift” camp near the town of Teknaf was sobering (ref C). The BDG refuses to acknowledge the inhabitants’ refugee status. Some of the Rohingyas who live there are displaced refugees from an older Rohingya “makeshift” community in Teknaf town, while others appear to be recent arrivals from northern Rakhine State in Burma. They live in a cramped, extremely unhygienic settlement sandwiched between the Naf River and the highway and eke out a living as day laborers in Teknaf (opposite Maung Daw, Rakhine State). Some prostitution is said to exist in this unofficial camp. Malnourished children were in evidence. The BDG reportedly asked these settlers to move to a different location, but the Rohingya say if they are not close to Teknaf, they will have no means of earning a living and then the BDG must take responsibility for their needs.

REFUGEES: THE TIP OF THE ICEBERG

5. (C) The BDG says that 20,697 Rohingya refugees lived in the two official refugee camps at the end of August. UNHCR in Cox’s Bazaar estimates that the figure is closer to 22,000. Although UNHCR is not allowed to operate in the “makeshift” camp, it estimates that there are close to 7,000 refugees living there. UNHCR further estimates there are 100,000 to 200,000 Rohingya migrants from Burma who have quietly integrated into the community around Cox’s Bazaar in recent years. Some of them have been able to obtain Bangladeshi passports, are registered to vote, and some travel to Persian Gulf countries for employment — rights that do not exist for them in Burma. UNHCR estimates that approximately 90% of these settlers are former Rohingya refugees who were repatriated to Burma in the mid 1990s, then through “reverse movement” returned to Bangladesh, but this time carefully avoided the refugee camps.

6. (C) UNHCR in Rangoon admits that it lacks the resources to continuously monitor 236,000 Rohingya returnees in northern Rakhine State eleven years after repatriation, and primarily focuses its attention on “new returnees,” monitoring them for three months after they return and only follow up further if problems develop. Therefore, it is entirely possible that some of the 236,000 Rohingya refugees who were repatriated to Rakhine State in the mid 1990s have managed to slip back into Bangladesh.

GUNS AND REBELS

7. (C) We spoke to journalists about recent arms caches that the BDG unearthed in Naikhongchhari, a forested district along the Burma-Bangladesh border (ref A and B). They believe that Rohingya insurgents such as the National United Party of Arakan (NUPA), the Rohingya Solidarity Organization (RSO), the Arakan-Rohingya National Organization (ARNO), and perhaps other splinter groups buried these weapons years ago. As little hope remained of rejuvenating their armed struggle, according to the journalists, some opportunists decided to earn money by selling the old arms to criminal groups. Some were caught trying to sell the arms, and in return for leniency, they revealed the locations of other arms caches to the BDG. The sources claimed that the leadership of the RSO and ARNO has moved on to the Middle East and their organizations are no longer viable. While the sources said that international terrorists might try to infiltrate the Rohingya camps by sea and foment trouble, they considered this scenario unlikely.

COMMENT: NO TURNING BACK

8. (C) The Bangladesh Red Crescent reported that only 92 Rohingya refugees chose repatriation to Burma this year, as compared to 3,233 in 2003. The refugees who chose to remain in Bangladesh listed many reasons why they originally left Burma, including refusal by the authorities to grant marriage licenses and to register their newborns, confiscation of their traditional land, the inability to leave their villages to trade, and the discriminatory and often brutal treatment inflicted on them by the Burmese military and local authorities. The refugees’ preference to remain in their hellhole camps in Bangladesh, rather than return to Burma, suggests just how bad conditions remain in northern Rakhine State.

Advertisements

CIA CREST records: Bangladesh before and after 1971 Liberation War

On January 17, 2017, the CIA published around 930,000 declassified documents to the standalone CIA Records Search Tool (CREST) system online, some of which are about Bangladesh and erstwhile East Pakistan. Earlier, the records were only accessible in person at the National Archives Records Administration (NARA) in College Park, Maryland and through four computer terminals.

Since 1999, the CIA has regularly released its historical declassified records to the CREST system.

The latest documents on Bangladesh – 1,937 posted in December last year and 95 in January – include views of the CIA and the US’ Dhaka embassy about events related to politics, economy and Bangladesh ties with India and other countries. On the other hand, the database includes 857 posts on erstwhile East Pakistan posted in December and 45 in January.

CIA sensed Bangladesh’s independence was inevitable

First published in the Dhaka Tribune on March 8, 2017

As the chances of East Pakistan getting separated from West Pakistan increased sharply following the December 1970 elections which reflected the people’s resistance against exploitation and dominance, the CIA observed in early March that Bangladesh’s future under the rule of Sheikh Mujibur Rahman’s Awami League would not be a smooth journey either.

CIA_logoThe report stated that an independent East Pakistan would begin with some assets, notably in the political realm but also including an ethnically homogenous population.
But it would “face economic problems of staggering proportions because of its dearth of natural resources, its burgeoning population, and its lack of capital, economic infrastructure, and entrepreneurial and technical skills.”

The dominant agricultural sector – mostly dependent on jute – could make little headway unless flood waters were controlled, the CIA said, adding that the process would require considerable capital.

The intelligence memorandum “East Pakistan: An Independent Nation?” dated March 1, 1971 and published online in January this year gives a glimpse of erstwhile East Pakistan’s strength and limitations, from agriculture to industrial growth and poor condition of the Bangalee army men.

The secret document was prepared by the Office of Current Intelligence and coordinated within the Directorate of Intelligence.

Pre-war East Pakistan:
• Population- around 73-75 million, with 90% living in rural areas
• Literacy rate 20%
• Average per capita income about $60 (far below that in West Pakistan and not much higher than the level in 1948)
• 4.3% engaged in small-scale manufacturing industry
• 45% of workforce in jute product manufacturing
• Agricultural sector mostly dependent on jute
• Flood, drought used to strike often
• Private investment 25% of national total
• Capital was in hands of a few wealthy families migrated from Pakistan, India and Myanmar
• Power shortages and frequent outages
• Until 1970, the country had only one gas field in Sylhet
• No easily exploitable coal fields
• Hydroelectric power possibilities were limited
• Rooppur nuclear plant was set to be constructed with the support of Belgium
• In 1965, there were 151 Bangalis in civil service out of 461
• In 1970, only 11 out of 53 Pakistani heads of missions were Bangalees

Economic situation
The rapid population growth was mentioned as the top economic factor in the report estimating the number of people to be 73-75 million in East Pakistan, a land area about the size of Florida or Arkansas, with 90% rural population and 20% literacy rate.

Based on a conservative growth rate, the CIA predicted that the population would be 115m in 1985 and 180m in 2000.

The average per capita income of East Pakistan was about $60, far below that in West Pakistan and not much higher than the level in 1948.

According to the 1961 census, only 4.3% of the East Pakistani labour force was engaged in manufacturing, almost entirely in small-scale industry.

Private enterprise was generally very inefficient in East Pakistan, where “numerous small, uneconomic shops produce similar products, using outdated methods and without sufficient capital for expansion,” the report said.

There had been little private investment in East Pakistan in comparison with the West wing, accounting to about 25% of the national total. Capital was largely in the hands of a few wealthy families who had migrated from Pakistan, India and Myanmar.

Much of the managerial class resident of East Pakistan was “composed of Urdu-speaking Muslim refugees [known as Biharis] from India, who have never been accepted by the Bangalis and who would probably move to West Pakistan if the East wing became independent.”

The CIA underscored the need for more workers with technical skills for the development of an independent East Pakistan.

Jute was the main cash crop at that time while 45% of the total industrial workforce was engaged in manufacturing jute products. But jute products had already started facing competition in the world markets from synthetics, the report said.

The agricultural sector used to face massive setback due to annual flooding and drought, while the country was also subject to high salinity and devastating cyclones. The November 1970 cyclone killed at least 500,000 people in coastal areas.

East Pakistan was also facing power shortages and frequent outages due to lack of mineral resources. Until 1970, the country had only one gas field in Sylhet for power generation and producing fertiliser.

“There are no easily exploitable coal fields in East Pakistan … hydroelectric power possibilities in East Pakistan are limited.” A nuclear power plant was set to be constructed at Rooppur of Pabna with the support of Belgium in five years.
Lack of adequate transport system was another reason behind sluggish growth in East Pakistan.

Civil service and foreign ties
In 1965, there were 151 Bangalees in the civil service out of a nationwide total of 461, the CIA report said, adding: “Under Mujibur Rahman, however, a civil service might not have as great a role to play.”

As of late 1970, only a few government agencies drew as many as half of their employees from East Pakistan. Many Bangalees had held lesser positions in the bureaucracy below the elite civil service level.

In 1970, only 11 out of 53 Pakistani heads of missions were Bangalees.

“Mujib is relatively well travelled and has expressed himself on certain foreign policy aspects. He favours the restoration of trade ties with India and the peaceful settlement of outstanding disputes.

The CIA anticipated that the independence of East Pakistan might give rise to dreams among Bangalees on both sides and concern in New Delhi over the formation of a “Greater Bengal.”

“The AL does not appear to be particularly sympathetic to communist China, and some AL leaders seem suspicious of Chinese intentions,” the CIA document reads.

The US is apparently held in high esteem by several senior AL leaders. At the same time, the report stated, “there have been frequent contacts between Soviet diplomats and AL leaders, and Soviet assistance after the cyclone of 1970 was substantial.”

East Pakistan had many pro-Pakistani army officers

First published in the  on March 9, 2017

The strength of the army posted in East Pakistan in early 1971 was dismal – largely disorganised and badly equipped, but the mindset of most of the officers being pro-Pakistani exacerbated the situation as the country was heading towards the final struggle for freedom at that time.

Less than 10% of the 350,000- strong military establishment were East Pakistanis, and without the resources to improve soon.

Only about 5% of the officers were East Pakistanis, “Many of them might well opt to stay with West Pakistan,” the CIA said in a report dated March 1, 1971, describing the strength and weakness of an independent Bangladesh.

The intelligence memorandum titled “East Pakistan: An Independent Nation?” was made public recently.

The CIA found that almost half of the East Pakistan army officers and non-commissioned officers (NCOs) in the East Bengal Regiment were not actually Bangalees.

They were “immigrants or descendants of immigrants from other parts of the subcontinent.”

The highest ranking East Pakistani army officer was Lt Gen Khwaja Wasiuddin, one of the very few to reach general officer or flag rank.

“General Wasiuddin, for example, is descended from Kashmiris,” the report said.

The CIA anticipated that in the regular army, only the battalions of the East Bengal Regiment would presumably revert to Bangladesh as complete units.

Retired army_Rashid Talukder_Muktijuddho E-Archive Trust
Retired army personnel gather at Outer Stadium in Dhaka in 1971. Photo: Rashid Talukder. Source: Muktijuddho E-Archive Trust

Khwaja Wasiuddin was born in Dhaka’s Nawab family on March 20, 1920. His mother Farhat Banu was a niece of Nawab Sir Salimullah.

According to Banglapedia, during the War of Liberation in 1971 Khwaja Wasiuddin was interned in West Pakistan. He returned to Bangladesh in 1974. He was initially appointed as the ambassador of Bangladesh to Kuwait and in 1976 as ambassador to France. He retired from the army in 1977.

He was appointed as permanent representative of Bangladesh to the United Nations and continued in this position till 1986.

Lack of equipment was another weakness, the CIA observed. “East Pakistan might end up with no more heavy equipment than five PT76 tanks, and even a distribution on current planned levels would give it a most two fighter squadrons, a few small patrol vessels, a minimum of armour.

“A system of STOL aircraft transport is presently in its infancy in East Pakistan,” the CIA document read.

On the other hand, independent Bangladesh was supposed to inherit the 10,000-men East Pakistan Rifles (EPR) which had internal security, anti-smuggling, and border patrol missions.

There was also an estimated 800,000-man Ansars (helpers) force that has helped the police when needed.

But of the Ansars, only 1 lakh had “received any training and only 50,000 participate in the activities regularly,” the CIA said.

Moreover, the East Pakistan provincial police had an almost entirely Bangalee force numbering about 32,000.

The Pakistani Army had attacked Peelkhana and Rajarbagh Police Lines simultaneously, as planned, at the beginning of the Operation Searchlight on March 25, 1971, with an aim to disarming the EPR and the police since those were the key sources of armed strength of the Awami League.

‘The showdown cannot be put off much longer’

First published in the Dhaka Tribune on August 7, 2017

Awami League supremo Sheikh Mujibur Rahman made his most inspiring speech on March 7, 1971, demanded unconditional transfer of power and urged people to launch an all-out movement against the oppressive West Pakistan rulers, making his stance clear to the world – he wanted independence.

Bangabandhu’s speech, considered to be his unofficial proclamation of independence, came as a response to then president Yahya Khan’s announcement on March 6 of a new date of the national assembly.

Yahya’s U-turn apparently meant to tame down the Bangalis who had been aroused by his previous suspension order given a week ago and the army killings amid a countrywide curfew.

But Yahya had his evil plan: he appointed Punjabi General Tikka Khan as the governor of East Pakistan and started reinforcing military in the province.

The first major evacuation of foreigners from East Pakistan had already begun because of the fresh reinforcement and following press reports that clashes between security forces and demonstrators in Khulna resulted in 18 deaths and 86 wounded, according to a CIA intelligence memorandum prepared on March 7, 1971.

Although Dhaka was quiet and the dawn-to-dusk curfew had been lifted, curfews remained in effect in other East Pakistani cities.

Meanwhile, the US embassy in Islamabad felt that the recent events – Mujib’s and Yahya’s speeches – had “averted an immediate shutdown, but that the next few days will tell whether the military decides it has had enough – which could mean a crackdown and the arrest of Mujib and others – or whether it still believes there is a chance to negotiate.”

The officials observed that the events of March 6-7 had not altered the basic elements.
“Bengalis appear bent on a degree of autonomy which the Pakistani military (and probably Bhutto) are unable to swallow. The question now is whether Yahya or Mujib will blink first – or whether neither will blink. The showdown cannot be put off much longer,” another declassified document prepared on March 8 reads.

Bangabandhu_March 7 speech_Syed Zakir Hossain
Portrait of Bangabandhu delivering his historic March 7 speech. Photo by Syed Zakir Hossain

“The embassy feels that Mujib’s goal – emancipation of East Pakistan – remains unchanged, but that Mujib may no longer believe this can be obtained through his programme of provincial autonomy.”

The officials predicted that Mujib might plan to achieve independence and “try to take over power gradually to avoid a direct confrontation with the military.”

Yahya tried to suppress speech

Mujib did not announce the secession of East Pakistan in his much-heralded speech before a large rally at the then Race Course Maidan (now Suhrawardy Udyan), instead he demanded an end to martial law and the transfer of power to popularly elected representatives in East Pakistan – as a precondition – to consider attending the national assembly scheduled for March 25.

“He also demanded the return of troops to their barracks and inquiries in the East Wing during the recent period of violence,” reads the CIA memo dated March 7, 1971.

“East Pakistani leader Mujibur Rahman’s speech indicates his tone was tougher than previously reported,” it adds.

Mujib also criticised Yahya Khan and Zulfikar Ali Bhutto, leader of the largest party in West Pakistan – Pakistan People’s Party.

Meanwhile, the authorities of erstwhile East Pakistan initially tried to prevent widespread public knowledge of parts of his speech, the memo says. “But the martial law authorities later relented and permitted a recorded version to be broadcast.”

Around a half-million people attended the rally.

In addition to announcing a 10-point non-cooperation programme, Mujib made scathing attacks on West Pakistanis, particularly the army and the “Punjabi ruling coterie.”

Punjabis are the largest group in West Pakistan and have been accused of exploiting not only the Bangalis of East Pakistan but also non-Punjabi West Pakistanis, the CIA document says.

The CIA identified Lt Gen Tikka Khan, the new governor of East Pakistan, as a “highly respected” West Pakistani, who was considered a “tough but fair officer with a pragmatic approach to problems.”

Tikka Khan outranked the martial law administrator for the East Wing, Lt Gen Yaqub Khan.

Prominent West Pakistani political leaders welcomed Yahya’s call for the meeting of the national assembly on March 25.

On the other hand, Bhutto “reversed his previous position” and announced his willingness to attend the session. “His earlier refusal to attend the session originally scheduled for March 3 helped trigger the crisis of the past week,” the CIA had observed.

USAID fund was diverted to pay razakars

First published in the Dhaka Tribune on January 24, 2017

A CIA declassified document released online last week suggests that the then East Pakistan authorities were diverting USAID contributions to pay the salaries of razakars who collaborated with the Pakistani Army to commit crimes against humanity during the 1971 Liberation War.

The notorious razakar (volunteer in English) force was formed with the members of Jamaat-e-Islami, a religion-based party that opposed the birth of Bangladesh, across the country.

They assisted the Pakistani occupation forces in finding and killing freedom fighters, Awami League supporters and Hindus. The razakars also took Bangalee women to the army camps, and looted the houses and businesses before torching them during operations.

“A USAID officer reported overhearing a conversation between two East Pakistan officials, one of whom noted that public relief funds were being used to pay the salaries of the razakars – local individuals hired as police by the martial law administration,” according to a Central Intelligence Bulletin created on September 28, 1971.

“There have been unsupported allegations earlier to this effect,” the top secret document reads. The public relief programmes were heavily subsidised by the US; for example, some $10 million has been supplied to a “test” relief programme as part of the overall relief programme of $136m for East Pakistan, it adds.

In the eyes of the average Bangalee citizen, the bulletin states, the razakars and the Pakistani Army were the most unpopular elements in the East wing.

Razakar_ID
This photo from 1971 shows the identity card of a razakar named Hossain Ahmad based in Dhaka. Photo Collection Source: Muktijuddho e-Archive Trust

According to Bangladesh war crimes trial documents, the first unit of the razakar force was formed by Jamaat leader AKM Yusuf on May 5, 1971 with 96 members of Jamaat in Khulna.

He started gathering people for the force on April 18. The Pakistan government recognised the force through a gazette notification on August 2 that year. Yusuf was also the regional chief of anti-liberation force Peace Committee. The Jamaat leader died in the midway of the war crimes case against him in February 2014.

Apart from the razakar force, Jamaat formed peace committees across the country with its members and others from different Islamist parties, and the notorious militia forces al-Badr with the members of its student wing who carried out systematic abduction and murder of hundreds of intellectuals.

Most of the top Jamaat leaders have been convicted by special tribunals dealing with the 1971 war crimes, while five of them including al-Badr kingpin Motiur Rahman Nizami were hanged after the end of legal procedure.

Houses, rail-road were heavily hit by 1971 war

First published in the Dhaka Tribune on January 24, 2017

Apart from carrying out genocide and rape in a mass scale, the Pakistani Army also burnt to ashes most of the rural households and destroyed the country’s rail communications during the 1971 Liberation War, according to a declassified CIA document released Tuesday.

Damage from the nine-month-long war that claimed around 3 million lives and forced over 10 million people to take refuge in India was visible during the USA’s first photographic coverage of independent Bangladesh.

A damage observation report prepared by the National Photographic Interpretation Centre and published on May 1, 1972 also covers brief of the war-torn country’s surface transportation systems, power plants, airfields, airports and military installations.

Bridge Blown Away
A photo from Bangladesh war zone in 1971. Photographer unknown

The “top secret” report, however, describes December 1971 as the month of war and labels the period between March and November as “pre-war civil disturbances in East Pakistan.”

The war had greatest effect on transportation system while completely destroying some 20 railway bridges and 12 major highway bridges disrupting communication on the ground. The rail tracks between Dhaka and Chittagong were left unserviceable by the damage to five bridges.

“Access to major ports on the Passur River has possibly been restricted by the sinking of five merchant vessels near Chalna [a port in Khulna],” the report says.

The damage to residential establishments in Dhaka had been “very extensive since March 1971.” Some houses had been repaired in January 1972 in the newer sections of the city but the destroyed dwellings in the older part could not be rebuilt during the time of the observation.

“A considerable amount of civilian housing, especially in small villages and isolated settlements throughout East Pakistan, was apparently destroyed by fire with only charred foundations remaining,” according to the observers’ note.

Limited damage was observed at three major military installations, 13 airfields and the Dhaka airport, while the industrial and manufacturing facilities had suffered little structural damage. All utilities appeared externally undamaged, except for a small diesel-run power plant and a thermal power plant.

Pakistan has never apologised for the war-time atrocities, and also refrained from trying the 195 Army officials detained as prisoners of war as per the 1974 tri-nation treaty.

According to widely believed assessment, Bangladesh faced a loss of over $1 billion in terms of damages to properties in the war.

Moreover, according to government estimates, Pakistan owes Bangladesh Tk18,000 crore in various heads including $2.16bn – half of the wartime foreign reserve of undivided Pakistan – and $200m as relief for the coastal people hit by a deadly cyclone in November 1970 that killed around 500,000 people.

বঙ্গবন্ধু হত্যা নিয়ে ঢাকার মার্কিন দূতাবাসের পাঠানো সব তথ্য

শুরুতেই উইকিলিকস ওয়েবসাইটের সাথে যুক্ত সকল এক্টিভিস্টকে আবারো সাধুবাদ জানাই মানব সভ্যতার বিকাশে তাদের অসামান্য অবদানের জন্য। জীবন বাজী রেখে তারা যেভাবে গোপন করা তথ্য প্রচার করছে তাতে কোটি কোটি মানুষ উপকৃত হচ্ছে; খসে পড়ছে গুটিকয়েক অপরাজনীতিক ও মুনাফালোভীদের চেহারা। সাধারণ মানুষ অনেক ষড়যন্ত্রের কথা জানতে পারছে যা কখনো কোন পত্রিকা/টিভিতে জানা যায়নি।

নোটঃ নীচের তথ্যগুলো সিরিজ আকারে এগিয়ে চলো ওয়েবসাইটে সম্প্রতি প্রকাশিত হয়েছে।

মৃত্যুর ৩ মাস আগে গ্রেনেড হামলা থেকে বেঁচে যান বঙ্গবন্ধু!

১৯৭৫ সালের ১৫ই আগস্ট ভোরে ধানমন্ডি ৩২ নম্বরের নিজ বাসায় উপস্থিত পরিবারের সকল সদস্যসহ নির্মমভাবে খুন হওয়ার প্রায় তিনমাস আগে, ২১শে মে, বাসায় ফেরার পথে গ্রেনেড হামলার শিকার হন তৎকালীন রাষ্ট্রপতি শেখ মুজিবুর রহমান।

সেই হামলায় তিনি প্রাণে বেঁচে গেলেও আহত হন তার দুই সঙ্গী। সরকারের কড়া নির্দেশনার কারনে তখন ঘটনাটি নিয়ে কোন খবর প্রকাশিত হয়নি।

তবে ঢাকাস্থ আমেরিকান দূতাবাস ঘটনাটি জানতে পারে এবং রাষ্ট্রদূত ডেভিস বোস্টার ২৩শে মে সে সম্পর্কে ওয়াশিংটনে একটি গোপন তারবার্তা পাঠান। একই সময়ে সেই বার্তা কলকাতা ও দিল্লীতে আমেরিকান দূতাবাসের অফিসেও পাঠানো হয়।

বোস্টার হামলাকারীদের পরিচয় ও হামলার স্থান সম্পর্কে কিছু জানাতে পারেননি।

বিষয়টি প্রথম পত্রিকায় প্রকাশিত হয় ২০১৩ সালের ১৩ই এপ্রিল, ভারতের দ্য হিন্দু পত্রিকায় এবং বাংলাদেশের The Daily Star পত্রিকায়।

২৩শে মে, ১৯৭৫-এর তারবার্তা

“আমাদের কাছে দুইটি সূত্র মারফত খবর আছে, ২১শে মে রাতে রাষ্ট্রপতি মুজিবুর রহমানকে হত্যার উদ্দেশ্যে হামলা হয়েছিল। ঢাকার বাইরে একটি টিভি স্টেশন পরিদর্শন শেষে মুজিব যখন তার বাসায় ফিরছিলেন, তখন হামলাটি করা হয়।”

দুটি সূত্রই নিশ্চিত করেছিল যে, এটি গ্রেনেড হামলা ছিল।

এই খবরের প্রাথমিক সূত্র হিসেবে বোস্টার দূতাবাসের এক বাঙালি কর্মকর্তার কথা বলেন যিনি সেখানে রাজনৈতিক সহকারী হিসেবে কাজ করতেন। তারবার্তায় হামলার স্থান, টিভি স্টেশনটি কোথায় বা বঙ্গবন্ধুর সাথে কারা কারা ছিল তা নিয়ে কোন তথ্য নেই।

সেই কর্মকর্তাকে এ ঘটনা সম্পর্কে জানিয়েছিল রাষ্ট্রপতির ব্যক্তিগত নিরাপত্তা বিভাগের একজন উপ-পুলিশ সুপারিনটেনডেন্ট।

দ্বিতীয় সূত্রটি ছিল বাংলাদেশি একজন সাংবাদিক, যার নাম তারবার্তায় উল্লেখ করা হয়নি। তিনি দূতাবাসের তথ্য কর্মকর্তাকে বলেন যে, গ্রেনেড হামলায় মুজিব অক্ষত থাকলেও দুইজন অজ্ঞাতনামা ব্যক্তি আহত হন।

তিনি আরো বলেনঃ “এই খবরটি ছাপানর ব্যাপারে পিআইডি থেকে কড়া নিষেধাজ্ঞা ছিল।”

আপডেটঃ এ বছরের ১৫ই আগস্ট ঢাকা ট্রিবিউন পত্রিকা ২১শে মে’র ঘটনা নিয়ে আওয়ামী লীগ ও জাসদের কয়েকজন নেতার সাথে কথা বলে বিস্তারিত তথ্য জোগাড় করতে পারেনি কেননা কেউ মুখ খুলছে না।

অভ্যুত্থানের প্রাথমিক তথ্যঃ

পনেরই আগস্ট ভোরে রাষ্ট্রপতি শেখ মুজিবুর রহমান ও তার পরিবারের সদস্যসহ ১১ জনকে হত্যা করা হয়। বঙ্গবন্ধুর ভাগ্নে শেখ ফজলুল হক মনির ধানমন্ডির বাড়িতেও হামলা চালায় সেনা সদস্যরা; খুন করে মনি ও তার অন্তঃসত্তা স্ত্রী আরজু মনিকে। আর মিন্টু রোডে আব্দুর রব সেরনিয়াবাতের বাড়িতে অভিযান চালিয়ে তাকে হত্যা এবং তার দুই সন্তানসহ মোট চারজনকে হত্যা করে ঘাতকরা।

স্বাধীন বাংলাদেশের ইতিহাসে সবচেয়ে নৃশংসতম এই সেনা অভ্যুত্থানে অংশ নেয়া খুনিদের অন্যতম মেজর ডালিম বাংলাদেশ বেতারের শাহবাগস্থ ঢাকা আঞ্চলিক কেন্দ্র থেকে খন্দকার মোশতাক আহমেদের নেতৃত্বে সেনাবাহিনীর ক্ষমতা দখলের বিষয়টি নিশ্চিত করে এবং কারফিউ ঘোষণা করে। বিডিআর এবং রক্ষীবাহিনীকে বলা হয় সেনাবাহিনীকে সহযোগীতা করতে।

রাষ্ট্রদূত বোস্টার বঙ্গবন্ধু হত্যার বিষয়টি নিশ্চিত হয়ে ওয়াশিংটনে তারবার্তা পাঠান দুপুর ১:২০-এ। তিনি জানান যে, ঢাকার সেনানিবাস ও ইন্টারকন্টিনেন্টাল হোটেলের আশেপাশে বিপুল পরিমান ট্যাংক অবস্থান করছিল। তবে দূতাবাসের উপর হামলার কোন ঝুঁকি ছিল না।

সিআইএ’র পাওয়া তথ্য

১৫ই আগস্ট সিআইএ তাদের নিয়মিত ব্রিফিং-এ রাষ্ট্রপতি নিক্সনকে জানায় যে, “বাংলাদেশের পশ্চিমাপন্থী মন্ত্রী খন্দকার মোশতাক আহমেদকে দেশের রাষ্টপতি ঘোষণা করা হয়েছে। শেখ মুজিবের পরিণতি জানা যায়নি; কেউ বলছে গৃহবন্দী, কেউ বলছে তাকে মেরে ফেলা হয়েছে। তার দুই ভাগনে ও প্রধানমন্ত্রী মনসুর আলীকেও হত্যা করা হয়েছে বলে খবর পাওয়া গেছে। মার্শাল ল ঘোষণা করা হয়েছে, বিমানবন্দর বন্ধ রয়েছে। দেশের নাম বদলে ইসলামিক রিপাবলিক অব বাংলাদেশ করার চিন্তাভাবনা করা হচ্ছে।”

অভ্যুত্থান কেন হলো বা নতুন সরকারের আচরণ কেমন হবে সে সম্পর্কে ততক্ষণ পর্যন্ত সিআইএ’র কাছে স্পষ্ট তথ্য ছিলনা। “তবে আশার কথা এই যে, শেখ মুজিবের মন্ত্রীপরিষদে মোশতাকই সবচেয়ে বেশি পশ্চিমাঘেঁষা এবং দলের মধ্যে একটি মধ্যপন্থার ছোট দলের সে ছিল পৃষ্ঠপোষক।”

ক্ষমতা পাকাপোক্ত করতে মোশতাক হয়তো দলের ডানপন্থীদের কাছে টানবে, যারা শেখ মুজিবের স্বেচ্ছাচার এবং ভারত-রাশিয়া নীতি ও বামপন্থার বিরোধী ছিল।

“যদিও শেখ মুজিবের বিরুদ্ধে খুব কম লোকেরই কথা বলার সাহস ছিল, তথাপি অর্থনৈতিক সমস্যা কাটাতে কার্যকর ভূমিকা নিতে না পারায় চাপা অসন্তোষ ছিল চরমে।”

সিআইএ’র মতে ভারত এখন নিবিড়ভাবে পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করবে। “যদিও ভারতের বিরুদ্ধে বাংলাদেশের অভ্যন্তরীন বিষয়ে হস্তক্ষেপ করার একটা অভিযোগ আগে থেকেই ছিল, তথাপি আইনশৃংখলা পরিস্থিতির চরম অবনতি না হলে ভারত সরাসরি হস্তক্ষেপ করবেনা।”

একদিন পরঃ

পরদিন সকাল ৯:১০ মিনিটে অভ্যুত্থানপরবর্তী ঘটনাক্রম বিস্তারিত বর্ণনা করে ওয়াশিংটনে একটি গোপন তারবার্তা পাঠান বোস্টার। সাথে নতুন সরকার ও সেনাবাহিনীর মনোভাব নিয়ে তার পর্যবেক্ষণ জানান – যা উৎসুক পাঠকের চিন্তার খোরাক জোগাবে। বার্তাটি তিনি স্টেট ডিপার্টমেন্ট ছাড়াও ভারত, পাকিস্তান ও নেপাল দূতাবাস এবং ইউএস পেসিফিক কমান্ডের প্রধানের কাছে পাঠান।

বোস্টার বলেন, প্রথম চব্বিশ ঘন্টার ঘটনাক্রম দেখে মনে হচ্ছে পাল্টা কোন অভ্যুত্থান ঘটবে না। শপথ গ্রহণের মাধ্যমে মন্ত্রীপরিষদ, সশস্ত্র বাহিনী, রাইফেলস, রক্ষীবাহিনী ও পুলিশ প্রধান মোশতাক সরকারের প্রতি আস্থা জানিয়েছে।

Boster_Mujibজনগণ উল্লাস প্রকাশ না করলেও অনেকেই হয়তো স্বস্তি বোধ করছেন, কেউ কেউ বা চুপচাপ মেনে নিয়েছেন। এত সহজে ক্ষমতা হস্তান্তরের প্রক্রিয়া দেখে মনে হচ্ছে মুজিব জনগণের থেকে দূরে সরে গিয়েছিলেন কারণ তিনি তাদের আশা পূরণে ব্যর্থ হয়েছিলেন, পরিবারকেন্দ্রীক ও স্বেচ্ছাচারী রাজনীতির জন্য তিনি অনেক বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছিলেন। অবিশ্বাস করতেন বলে তার একসময়কার সবচেয়ে দক্ষ পরামর্শকরা দূরে সরে গেল; তিনি আরো স্বৈরাচারী হয়ে উঠেন।

অভ্যুত্থানকারীরা হয়তো দুটি বিষয়কে প্রাধান্য দিয়ে ভেবেছিল আর দেরী করা ঠিক হবেনা – ক্ষমতা পাকাপোক্ত করতে জুন মাস থেকে মুজিবের বিভিন্ন পদক্ষেপ এবং তার ভাগ্নে শেখ ফজলুল হক মনির ক্রমাগত বাড়তে থাকা প্রভাব। আর ভারতের স্বাধীনতা দিবসের দিনটিকে বেছে নেয়াটা হয়তো কাকতালীয় হতে পারে, তবে সেটাও আমরা আমলে নিয়েছি।

মোশতাকের সরকার হয়তো টিকে যাবে তবে সেক্ষেত্রে প্রচুর সংস্কারমূলক পদক্ষেপ দেখা যাবে। ক্ষমতা গ্রহণের পর রেডিওতে দেয়া তার ভাষণে মোশতাক জানিয়েছে বিদেশীদের সাথে কূটনৈতিক সম্পর্ক ও ব্যবসা-বাণিজ্য স্বাভাবিকভাবেই চলবে।

এরই মধ্যে বোঝা যাচ্ছে মোশতাক পাকিস্তানসহ মুসলিম বিশ্বের সাথে সম্পর্ক উন্নয়নের চেষ্টা করবে। অন্যদিকে ভারতের উপর নির্ভরতা থেকে বের হয়ে আসবে। তাছাড়া মোশতাক বলেছে আমেরিকা, সোভিয়েত রাশিয়া ও চীনসহ বিশ্বের বৃহৎ শক্তিগুলোর সাথে সে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক রাখবে। তার মানে বিদেশীদের সাথে বাংলাদেশের সম্পর্কের ক্ষেত্রে ভারসাম্য আনার জন্য কাজ করবে এই সরকার। ফলে সোভিয়েত রাশিয়ার প্রভাব কিছুটা কমবে।

অবস্থাদৃষ্টে মনে হচ্ছে নতুন সরকারের সাথে আমেরিকার সম্পর্ক আরো আন্তরিক হবে; মুজিবের আমলের চেয়েও বেশি। নতুন রাষ্ট্রপতি এর আগে অনেকবার উচ্ছ্বাসিতভাবে তার আমেরিকাপ্রীতি প্রকাশ করেছে; তাছাড়া দলে এখন আর আগের বামপন্থী ও আমেরিকা-বিদ্বেষীরা নেই। এমনও সম্ভাবনা আছে যে মোশতাক সরকার আমাদের কাছ থেকে আরো অনেক ত্রাণ সহায়তা চাইবে। সে আগেও আমাদের বলেছে একমাত্র আমেরিকাই পারে বাংলাদেশকে সত্যিকারভাবে সাহায্য করতে।

রাষ্ট্রদূত বলেন, মোশতাক সরকারের সাথে সেনাবাহিনীর সম্পর্ক কতটা নিবিড় তা এখনো বোঝা যাচ্ছে না। তবে প্রতিটি সরকারি প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে ক্ষমতার পালাবদলে সেনাবাহিনীর ভূমিকার কথা স্পষ্ট করে বলা হচ্ছে। আমাদের বলা হয়েছে সেনাবাহিনী এখন মার্শাল ল’র আদেশ তৈরি করছে। এখন যদি পাকিস্তানি কায়দায় দেশ চালানো হয়, তবে এটাই হবে দেশের মূল আইন।

এতে করে সাময়িকভাবে জনগণের সাথে সেনাবাহিনীর একটা দ্বন্দ্ব তৈরি হতে পারে; তবে মোশতাক ইতিমধ্যে সংবিধান সংশোধনের ঈঙ্গিত দেয়ার মাধ্যমে একটি উদার রাজনৈতিক পরিবেশ তৈরির কথা বলেছে।

সফলভাবে মুজিবকে উৎখাতের পর এখন মনে হচ্ছে, অভ্যুত্থানকারীরা পরের করনীয় নিয়ে বিশেষ কিছু ভাবেনি। তবে একবার যেহেতু রক্তের স্বাদ পেয়েছে, তারা এখন ক্ষমতার কেন্দ্রে থেকে প্রভাব খাটানোর চেষ্টা করবে। তারা এখনো এমন কোন বক্তব্য বা সিদ্ধান্ত দেয়নি যা মুজিবের আমলের থেকে খুব বেশি ভিন্ন। ফলে, আমি অবাক হবো না যদি দেখা যায় এই অভ্যুত্থানের পরিকল্পনার পেছনে আসলে খুব কম সংখ্যক ব্যক্তি জড়িত। যে কারনে তারা নতুন সরকারের রূপরেখা ও বিস্তারিত পরিকল্পনা তৈরি করোতে পারেনি।

Mujib_Mushtaque

সরকার যদি জনগণের অবস্থা পরিবর্তনে স্বদিচ্ছা প্রমাণ করোতে না পারে, তবে এই মুহুর্তে তারা যতটুকু প্রাধান্য পাচ্ছে তাও নিঃশেষ হয়ে যাবে। পাশাপাশি আমাদের আরেকটা ক্ষমতার লড়াই দেখতে হতে পারে।

বাঙালি রাজনীতিবদদের মধ্যে এখন এমন কেউ নেই যে কিনা শেখ মুজিবের মতো নেতৃত্ব দিয়ে বেশিদিন ক্ষমতায় টিকে থাকতে পারবে। ফলে বেসামরিক সরকার ব্যর্থ হলে সেনাবাহিনী হয়তো ভাবতে পারে এই জাতিকে তারাই আরেকবার বাঁচাতে পারে।

মোশতাকের কিছু পদক্ষেপঃ

বাইশে আগস্ট পাঠানো এক তারবার্তায় বোস্টার জানায় শেখ মুজিবকে হত্যার এক সপ্তাহ পর আইনশৃংখলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে থাকলেও জনগণের মধ্যে স্বাভাবিক অবস্থা ফিরে আসেনি।

  • ঘটনার পর পর সাময়িকভাবে মার্শাল ল আরোপ করা হয়; কিন্তু ১৯ তারিখে তা অনির্দিষ্টিকাল পর্যন্ত বাড়ানো হয়; সংবিধান সংশোধন করে মোশতাকের ক্ষমতা দখলকে বৈধতা দেয়া হয়।
  • পরের দিন সরকার জানায় সংবিধানের চারটি মূলনীতি (জাতীয়তাবাদ, সমাজতন্ত্র, গণতন্ত্র ও ধর্মনিরপেক্ষতা) অপরিবর্তিত থাকবে।
  • একুশে আগস্ট তার নিজের কালো রঙের টুপিকে জাতীয় টুপি ও তার জামাকে (গলাবন্ধ ফুলহাতা আচকান বা শেরওয়ানী) সরকারি পোশাক হিসেবে ঘোষণা করে।
  • রেডিওতে রবীন্দ্র সঙ্গীত ও গীতা থেকে শ্লোক পাঠ বন্ধ করে দেয়া হয়। গীতা পাঠ পরে আবার চালু করা হয়।
  • বক্তব্যের শেষে জয় বাংলা’র বদলে বাংলাদেশ জিন্দাবাদ ব্যবহার শুরু হয়।
  • দেশের নাম বদলে ইসলামিক রিপাবলিক অব বাংলাদেশ করার পরিকল্পনা পরে বাতিল করা হয়।

এর মধ্যে ২০শে আগস্ট মোশতাকের অনুরোধে বোস্টার বঙ্গভবনে তার সাথে দেখা করলে রাষ্ট্রপতি তার সরকারের পক্ষে আমেরিকার স্বীকৃতি আদায়ের জন্য অনেক অনুনয় বিনয় করে। সেদিন পাঠানো তারবার্তায় বোস্টার নিজেও স্বীকৃতি দানের পক্ষে মত দেয়। এর আগে ইংল্যান্ড, জাপান, বার্মাসহ আরো কয়েকটি দেশ মোশতাক সরকারকে স্বীকৃতি দেয়। এরপর পাকিস্তানের ভুট্টো সরকার মোশতাককে অভিনন্দন জানিয়ে চাল ও কাপড় পাঠায়। অন্যদিকে জামায়াতের প্রতিষ্ঠাত মওদুদী মুজিব হত্যাকে আল্লাহর কৃপা এবং ইসলামের বিজয় হিসেবে ঘোষণা করে।

২৩শে আগস্ট গ্রেপ্তার হন জাতীয় চার নেতা – তাজউদ্দীন আহমেদ, সৈয়দ নজরুল ইসলাম, ক্যাপ্টেন মনসুর আলী ও এ. এইচ. এম. কামরুজ্জামান। তাদেরকে সরকারে যোগ দেওয়ার আমন্ত্রন জানিয়েছিল মোশতাক। কিন্তু সেই প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় তাদের গ্রেফতার করা হয়।

পরের দিন মেজর জেনারেল কে. এম. শফিউল্লাহকে সরিয়ে উপ-সেনাপ্রধান মেজর জেনারেল জিয়াউর রহমানকে সেনাপ্রধান হিসেবে নিয়োগ দেয় মোশতাক। জিয়ার ডেপুটি হিসেবে নিযুক্ত হয় ব্রিগেডিয়ার এরশাদ। অন্যদিকে মুক্তিযুদ্ধের সর্বাধিনায়ক এবং বঙ্গবন্ধু সরকারের একসময়ের মন্ত্রী জেনারেল এম. এ. জি ওসমানী মোশতাকের প্রতিরক্ষা উপদেষ্টা পদে নিয়োগ পান। ১৯৭৫ সালের জানুয়ারি মাসে সংবিধান সংশোধনের বিরোধীতা করে তিনি সংসদ থেকে পদত্যাগ করেন।

মুজিব হত্যায় উফুল্ল ভুট্টো, মওদুদী

মুজিব হত্যার পরপর পাকিস্তানে খুশির বন্যা বয়ে যায়; বাংলাদেশকে আগের মতো ইসলামিক লেবাস পড়ানোর মোশতাকের পরিকল্পনা তারা আন্তরিকভাবে স্বাগত জানায় – সেখানকার পত্রিকা ও জনমত যাচাই করে এমনটাই বলেছিল ইসলামাবাদের আমেরিকান দূতাবাস থেকে। এছাড়া বাংলাদেশের সম্ভাব্য অর্থনৈতিক সংকট এবং ভারতের হস্তক্ষেপের বিষয়গুলোও বিভিন্ন মহলে বিশেষভাবে আলোচিত হয়।

পাকিস্তানের পররাষ্ট্র মন্ত্রনালয়ের মতে, তারা দ্রুত মোশতাক সরকারকে সমর্থন জানাতে কাজ করছিল। জনগণের এই মনোভাব চলমান থাকলে বাংলাদেশের সাথে সম্পর্ক উন্নয়নে তা গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে।

তবে ইসলামীকরণের যে পরিকল্পনার কথা শোনা যাচ্ছিলো তা ভুল প্রমাণিত হলে জনগণের আনন্দ মাটি হবে এবং অপরদিকে প্রধানমন্ত্রী ভুট্টোর সম্মান নষ্ট হবে। কেননা ভুট্টো বাংলাদেশ ইসলামী প্রজাতন্ত্রকে স্বীকৃতি দেওয়ার ঘোষণা দেওয়ার দুই দিনের মধ্যে জানতে পারে যে তথ্যটি হয়তো সত্য নাও হতে পারে। তবে পররাষ্ট্র মন্ত্রনালয়ের ধারণা সেই মুহুর্তে মোশতাক দেশের নাম না বদলালেও ভবিষ্যতে তা বাস্তবায়িত হতে পারে।

[প্রসঙ্গতঃ ১৯৭৭ সালের ৫ই জুলাই ভুট্টোকে ক্ষমতা থেকে উৎখাত করে জেনারেল জিয়াউল হক এবং ১৯৭৯ সালে একটি রাজনৈতিক হত্যা মামলায় তাকে ফাঁসিতে ঝুলানো হয়।]

পাকিস্তানের পররাষ্ট্র মন্ত্রনালয়ের এক কর্মকর্তা দূতাবাসকে বলেন মুজিব সরকারের পতন হওয়ায় বাংলাদেশের সাথে সম্পর্ক আরো বন্ধুত্বপূর্ণ হবে, ফলে এর মাধ্যমে পাকিস্তানের পক্ষে বাংলাদেশে একটি ভারত ও রাশিয়া-বিরোধী মনোভাব সৃষ্টি করা সম্ভব। চীন হয়তো কিছুদিনের মধ্যেই বাংলাদেশকে স্বীকৃতি দিবে, কিন্তু এতে করেও বাংলাদেশকে তিন দিক থেকে ঘেরা ভারতের প্রভাব খুব একটা কমবে না বলে ধারণা করে দূতাবাস।

হয়তো শুধু জনমতের কারনেই পাকিস্তানের সব পত্রিকা মুজিব হত্যা নিয়ে বিভিন্ন খবর বিশেষ গুরুত্ব দিয়ে ছাপে। পাশাপাশি বিশেষভাবে আলোচিত হয় ভুট্টোর ঘোষণার কথা। আবার বাংলাদেশে ভারতের সম্ভাব্য সাঁড়াশি অভিযানের কথা বলে কোন কোন পত্রিকা। তবে মোশতাকের সরকার সৌদি আরবসহ বিভিন্ন ইসলামিক দেশের সমর্থন পাওয়ায় ভারত সেই চেষ্টা হয়তো করবেনা বলেও অনেকে মত দেয়। অন্য দিকে বাংলাদশের অর্থনৈতিকে সংকট কাটিয়ে উঠতে ধনী মুসলিম দেশগুলো আগের চেয়ে বেশি অর্থ সাহায্য করবে বলে আলোচনা হয়।

পাকিস্তানের অধিকাংশ জনগণ ও মিডিয়া মুজিব হত্যাকান্ডে স্বস্তিবোধ করলেও কিছু বুদ্ধিজীবী হামলার নৃশংসতায় ক্ষোভ প্রকাশ করে। তবে তারা সরকার উৎখাতের বিরুদ্ধে কোন মন্তব্য করেনি।

অধিকাংশ পাকিস্তানীর মতে, শেখ মুজিব ছিলেন একজন দেশদ্রোহী এবং ইসলামের শত্রু। তাদের ধারণা বাকশাল গঠন করার কারনেই তার সরকারকে উৎখাত করা হয় এবং একজন দেশদ্রোহী বা স্বৈরাচার যেভাবে পরিণতি বরণ করে, ঠিক সেভাবেই তারও মৃত্যু হয়েছে।

মওদুদীঃ এটা আল্লাহর দয়া, ইসলামের বিজয়

রাজনৈতিক দল ও সমাজেরবিভিন্ন স্তরের নেতারা জনমত বুঝে বাংলাদেশে মোশতাক ও পাকিস্তান সরকারকে ধন্যবাদ জানিয়েমিডিয়াতে নানারকম বক্তব্য ও বিজ্ঞপ্তি দেয় বলে ওয়াশিংটনকে জানায় ইসলামাবাদ। জামায়াতে ইসলামীর প্রধান তাত্ত্বিক নেতা মাওলানা মওদুদী বঙ্গবন্ধু হত্যাকে আল্লাহর অশেষ কৃপা ও ইসলামের বিজয় হিসেবে বর্ণনা করে।

ইউনাইটেড ডেমোক্রেটিক ফ্রন্টের কেন্দ্রীয় কার্যকরী কমিটি মোশতাক সরকারকে সমর্থন জানিয়ে প্রস্তাব পাশ করে যার বক্তব্য ছিলঃ বাংলাদেশে খুশি হবার মতো যে পরিবর্তন দেখা যাচ্ছে তাতে সেদেশের সাথে পাকিস্তানের সম্পর্ক আরো গভীর হবে। এছাড়া বাংলাদেশের অখন্ডতা ও সার্বভৌমত্ব রক্ষায় বিশ্বের সব মুসলিম দেশকে আহ্বান জানায় পাকিস্তান। তবে ইউডিএফ অবশ্য পাকিস্তানের রাজনীতিতে চলমান অস্থিরতা নিয়ে নিজ দেশের সরকারকে হুঁশিয়ারি দিয়ে বলে সমাধানের পথ না খুঁজলে সেখানেও বাংলাদেশের মতো পরিস্থিতির সৃষ্টি হতে পারে।

পাকিস্তানের পররাষ্ট্র মন্ত্রনালয়ের দক্ষিণ এশিয়া বিষয়ক মহাপরিচালক হায়াত মেহেদীর মতে, ক্ষমতার পট পরিবর্তনের কারনে দুই দেশের কূটনৈতিক পর্যায়ে সম্পর্ক গভীর হবে, কেননা বাংলাদেশের রাজনীতিবিদদের মধ্যে শেখ মুজিবই সবচেয়ে বেশি কট্টর পাকিস্তান-বিদ্বেষী ছিলেন। তার প্রস্থানের ফলে বাংলাদেশ এখন থেকে এমনভাবে কাজ করবে যে পাকিস্তান ভেঙ্গে যাওয়ার পেছনের কারনগুলোও সমাধান করা সম্ভব হবে। আবার বিহারীদের ফিরিয়ে নিতে শেখ মুজিবের সৃষ্টি করা চাপও কমবে। এতে করে বিহারীরা বাংলাদেশেই আরো ভালো সুযোগ-সুবিধা ভোগ করতে পারবে।

দুই দেশের মধ্যে দ্রুত কূটনৈতিক সম্পর্ক শুরু করতে পাকিস্তান তৈরি ছিল। তবে হাইকমিশন স্থাপনের আগেই বিহারীদের প্রত্যাবর্তন ও সম্পদ ভাগাভাগির ব্যাপারটি সমাধান করতে হবে কিনা এটা নিশ্চিত করতে পারেননি মেহেদী।

বাংলাদেশকে চীনের স্বীকৃতিঃ লাভবান খুনী মোশতাক

বাংলাদেশ নিয়ে চীনের উদ্দেশ্য আসলে কি, এ বিষয়ে মুক্তিযুদ্ধের আগে-পরে বরাবরই আওয়ামীলীগের নেতৃত্ব সন্দিহান ছিল । ভারত বা রাশিয়ার মতো চীনের প্রতি সহানুভূতি ছিলনা বঙ্গবন্ধুর। চীন স্বাধীনতার পর বাংলাদেশকে স্বীকৃতি দেয়নি। দিয়েছে বঙ্গবন্ধুকে হত্যার দুই সপ্তাহ পর।

চীনের প্রথম প্রধানমন্ত্রী চৌ এন লাই (যিনি ১৯৪৯ থেকে ১৯৭৬ সাল পর্যন্ত ক্ষমতায় ছিলেন) বাংলাদেশের তৎকালীন রাষ্ট্রপতি খন্দকার মোশতাকের কাছে চিঠি পাঠান ৩১শে আগস্ট। খবরটি ওয়াশিংটনকে জানিয়েছিলেন ঢাকাস্থ আমেরিকান রাষ্ট্রদূত ডেভিস বোস্টার ২রা সেপ্টেম্বর।

স্বীকৃতির বিষয়ে বাংলাদেশের পত্রিকা ও রেডিওতে খবর আসে ১লা সেপ্টেম্বর। চৌ এন লাই বলেনঃ গণপ্রজাতন্ত্রী চীনের পক্ষে সম্মানপূর্বক আমি আপনাকে জানাতে চাই যে, আজ চীন সরকার গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশকে স্বীকৃতি দিল। আমি বিশ্বাস করি যে এর ফলে দুই দেশের জনগণের মধ্যে বন্ধুত্ব আরো বাড়বে।

বঙ্গবন্ধুর প্রস্থানে তিনি উচ্ছ্বসিত ছিলেন বলেই প্রতীয়মান হয়!

এই স্বীকৃতি মোশতাক সরকার ও বাংলাদেশের জন্য কতটা লাভজনক হবে, এ নিয়ে রাষ্ট্রদূত তার পর্যবেক্ষণ দিলেও এতে আমেরিকার লাভ বা ক্ষতি নিয়ে তিনি কোন মন্তব্য করেননি।

তার মতে, চীনের এই স্বীকৃতি মোশতাক সরকারকে বৈধতা দেয়। এর ফলে বাংলাদেশ উদার ও ভারসাম্যপূর্ণ পররাষ্ট্রনীতির দিকে এগিয়ে যাবে। চীনের সাথে নতুন এই সম্পর্ক এদেশে ভারতের প্রভাব কমানোর একটি উপায় হতে পারে। মোশতাক এ বিষয়ে প্রাণপন চেষ্টা করবে; শেখ মুজিবের মতো ভারতের সাথে বিশেষ বন্ধুত্ব রাখবেনা।

চীনের স্বীকৃতি বাংলাদেশের জনগণের মাঝেও চাঞ্চল্য সৃষ্টি করেছে। তারা অনেক বেশি আশান্বিত হয়েছে। বোস্টার লেখেন, “বাঙালিদের কাছে এই স্বীকৃতি ভারত সরকারের মুখে চপেটাঘাতের মতো। এর ফলে স্বাধীন-সার্বভৌম বাংলাদেশের অস্তিত্ব স্বীকৃতি পেল। অন্যদিকে পাকিস্তান আমলের মতো আবার এদেশের বাজারে চীনা কমদামী পণ্য প্রবেশের সুযোগ ঘটলো। কিছু পত্রিকা তো এর মধ্যেই চীনে পাট রপ্তানীর সম্ভাবনা নিয়ে লেখালেখি শুরু করে দিয়েছে।”

বঙ্গবন্ধুকে হত্যার ৮দিনের মাথায় সেনাবাহিনীর প্রধান জিয়া!

ধানমন্ডি ৩২ নম্বরের বাড়িতে ১৫ই আগস্টের হত্যাকাণ্ডের মাত্র আট দিন পর জিয়াউর রহমান সেনাপ্রধান হিসেবে পদোন্নতি পান ২৪শে আগস্ট। হত্যাকান্ডের সময় ও তার পরের কয়েকদিন চুপচাপই ছিলেন জিয়া। তবে সেদিন হঠাৎ মেজর জেনারেল কে. এম. শফিউল্লাহকে সরিয়ে তার ডেপুটি জিয়াকে সেনাপ্রধান হিসেবে নিয়োগ দেয় খুনীদের ক্রীড়ানক খন্দকার মোশতাক।

চব্বিশে আগস্ট নতুন চিফ অব আর্মি স্টাফ মেজর জেনারেল জিয়ার ডেপুটি হিসেবে নিয়োগ দেয়া হয় ব্রিগেডিয়ার হু. মো. এরশাদকে, যে তখন প্রশিক্ষণের জন্য ভারতে অবস্থান করছিল। পাশাপাশি তাকে মেজর জেনারেল পদে উন্নীত করা হয়।

সেনাপ্রধানের পদ থেকে সরিয়ে মেজর জেনারেল শফিউল্লাহকে পররাষ্ট্র মন্ত্রনালয়ে যুক্ত করা হয়। তবে চিফ অব জেনারেল স্টাফ ব্রিগেডিয়ার খালেদ মোশাররফের বিষয়ে তখনো কোন সিদ্ধান্ত হয়নি। উভয়েই শেখ মুজিবের আস্থাভাজন ছিলেন।

২৫শে আগস্ট সকালে এই গোপন তারবার্তাটি ওয়াশিংটন পাঠান রাষ্ট্রদূত ডেভিড বোস্টার।

Maj Ziaপনেরই আগস্ট সেনাবাহিনীর কাছ থেকে রাষ্ট্রপতি হিসেবে দায়িত্ব নিয়ে চার জাতীয় নেতাকে (তাজউদ্দীন আহমেদ, সৈয়দ নজরুল ইসলাম, ক্যাপ্টেন মনসুর আলী ও এ. এইচ. এম. কামরুজ্জামান) তার সরকারে যোগ দেওয়ার আমন্ত্রন জানিয়েছিল মোশতাক। কিন্তু সেই প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় তাদের গ্রেফতার করা হয়।

৩রা নভেম্বর কারাগারে তাদের খুন করে বঙ্গবন্ধুর হত্যাকারীরা। ৪ঠা নভেম্বর থেকে তিনদিন ধরে চলা আরেকটি রক্তাক্ত অভ্যুত্থান-পাল্টা অভ্যুত্থানে খালেদ মোশাররফ নিহত ও কর্ণেল তাহের গ্রেফতার হন; এবার রাষ্ট্রক্ষমতা দখল করেন জিয়া।

এর আগে ২৪শে আগস্টের রদবদলে চিফ অব ডিফেন্স স্টাফ নামে একটি পদ সৃষ্টি করে বিডিআর প্রধান মেজর জেনারেল খলিলুর রহমানকে নিয়োগ দেয়া হয়। খলিল জিয়ার চেয়েও সিনিয়র হওয়ায় তাকে তিন বাহিনীর প্রধানের চেয়েও বড় এই নতুন পদ দেয়া হয়।

তার স্থলে বিডিআর প্রধান হিসেবে নিযুক্ত করা হয় চট্টগ্রামের ব্রিগেড কমান্ডার ব্রিগেডিয়ার কাজী গোলাম দস্তগীরকে।

স্বাধীনতার পর বাংলাদেশে ফেরার পর থেকে মেজর জেনারেল খলিল রাষ্ট্রপতি শেখ মুজিবের উপর ক্ষুব্ধ ছিলেন। কেননা তাকে বিডিআর-এ পাঠানো হয়, যদিও তিনি ব্রিগেডিয়ার থেকে মেজর জেনারেল পদে পদোন্নতি পান।

অন্যদিকে মুক্তিযুদ্ধের সর্বাধিনায়ক এবং বঙ্গবন্ধু সরকারের একসময়ের মন্ত্রী জেনারেল এম. এ. জি ওসমানী মোশতাকের প্রতিরক্ষা উপদেষ্টা পদে নিয়োগ পান। ১৯৭৫ সালের জানুয়ারি মাসে সংবিধান সংশোধনের বিরোধীতা করে তিনি সংসদ থেকে পদত্যাগ করেন।

রাষ্ট্রদূতের পর্যবেক্ষণ

রাষ্ট্রদূত ডেভিড বোস্টারের মতে, ওসমানী বর্ষীয়ান বা সাবেক মন্ত্রী না হলে মোশতাক হয়তো তাকে প্রতিরক্ষা প্রতিমন্ত্রী পদ দিতো। প্রটোকলবিহীন প্রতিরক্ষা উপদেষ্টা পদ দেয়ার মাধ্যমে  এখন থেকে মোশতাক তাকে যথেচ্ছভাবে ব্যবহার করতে পারবে। এখন পর্যন্ত শোনা যাচ্ছে ওসমানী হয়তো আপাতত প্রতিরক্ষা মন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করবেন।

বোস্টার বলেন, পনেরই আগস্ট শেখ মুজিবকে উৎখাতের পর খুনীদের একটি গুরুত্বপূর্ণ কাজ ছিল তার আস্থাভাজন মেজর জেনারেল শফিউল্লাহকে সরিয়ে দেওয়া। সেনাবাহিনীতে তাকে একজন অপেক্ষাকৃত দূর্বল নেতা হিসেবে দেখা হতো। এই সুযোগে সেনাবাহিনীতে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি হয়, যার ফলে কয়েকজন মেজর অভ্যুত্থান ঘটানোর মতো সুযোগ পায়। অবশ্য কয়েকজন বিশ্লেষক রাষ্ট্রদূতকে বলেন রদবদলের পর সেনাবাহিনী এখন অভ্যুত্থানকারীদের উপর নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠা করতে পারবে।

আমেরিকার স্বীকৃতি পেতে রাষ্ট্রদূতকে ডেকে অনুনয় করে মোশতাক

বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর দেশে স্বাভাবিক অবস্থা ফিরিয়ে আনতে আমেরিকার দ্বারস্থ হয় খন্দকার মোশতাক। তার উদ্দেশ্য ছিল ভারতের সম্ভাব্য হস্তক্ষেপ এড়াতে আমেরিকাকে ব্যবহার করা। এর আগে মুক্তিযুদ্ধের সময়ে নিক্সন সরকারের কর্মকর্তাদের মধ্যস্থতায় পূর্ব ও পশ্চিম পাকিস্তানের মধ্যে সমঝোতার জন্য কলকাতায় অনুষ্ঠিত বৈঠকে মোশতাক উপস্থিত ছিল। সেই সমঝোতা ব্যর্থ হয়।

১৯৭৫ সালের ২০শে আগস্ট ঢাকাস্থ আমেরিকান রাষ্ট্রদূত ডেভিড বোস্টারকে বঙ্গভবনে আমন্ত্রণ জানিয়ে “এবার আর সুযোগ না হারানোর” পরামর্শ দেয় মোশতাক। সে বলে পরিস্থিতি এতোই জটিল যে “এক্ষুণি, আজকেই” স্বীকৃতি প্রয়োজন।

বৈঠকে স্বীকৃতির ব্যাপারে স্পষ্ট কোন সিদ্ধান্ত না জানালেও অর্থনৈতিক সহযোগীতামূলক কর্মকান্ড স্বাভাবিকভাবেই চলবে বলে মোশতাককে আস্বস্ত করে বোস্টার।

একই দিনে ওয়াশিংটনে পাঠানো তারবার্তায় বোস্টার স্বীকৃতি দেয়ার ব্যাপারে মত দেয়। বলেন, মোশতাক যখন নিজে থেকেই আমেরিকার সাহায্য চাইছে, এই অবস্থায় স্বীকৃতি দিলে বাংলাদেশের পররাষ্ট্রনীতিতে আমাদের পছন্দমতো পরিবর্তন আনতে তা কার্যকর ভূমিকা রাখবে। তাছাড়া ইংল্যান্ড, জাপান, বার্মাসহ আরো অনেকেই ইতিমধ্যে মোশতাক সরকারকে স্বীকৃতি দিয়েছে।

তবে বোস্টারের মতে আনুষ্ঠানিকভাবে প্রেস কনফারেন্স করে মোশতাক সরকারকে স্বীকৃতি দেয়ার জন্য আমেরিকা প্রস্তুত থাকলেও আরো কয়েকদিন পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করা উচিত।

মোশতাক জানায় আমেরিকার ফোর্ড সরকারের কাছ থেকে কি সহযোগীতা চাওয়া যেতে পারে তা সে তখনো ভাবেনি, কিন্তু আমেরিকার সরকারের কাছ থেকে তার স্বীকৃতি পাওয়াটা খুব জরুরি। এই স্বীকৃতি এদেশে ভারতের প্রভাব কমাতে সাহায্য করবে বলে সে জানায়। তার সন্দেহের কারন ছিল মুজিব-ইন্দিরার সখ্যতা, ভারতের মিডিয়াতে মোশতাকবিরোধী প্রচারণা ও মুক্তিযুদ্ধের সময়কার মতো পাকিস্তানের বিরুদ্ধে প্রচারণা চালাতে ভারত-বাংলাদেশ সীমান্তে শরনার্থী শিবিরে বাংলাদেশীদের জড়ো করার চেষ্টা ইত্যাদি।

বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর কোন রক্তপাত ছাড়াই পরিস্থিতি শান্ত করা গেছে বলে জানায় মোশতাক। কিন্তু ভারত যদি স্থল বা আকাশপথে হামলা করে তাহলে বাংলাদেশ পুরোপুরি অরক্ষিত হয়ে পড়বে। এমতাবস্থায় আমেরিকা তার সরকারকে স্বীকৃতি দিলে ভারত হস্তক্ষেপ করার আগে আরো ভাববে।

বোস্টারের মতে ভারত সরকার ইতিমধ্যে অফিশিয়াল বক্তব্যে মুজিব হত্যা ও পরবর্তী ঘটনাপ্রবাহকে বাংলাদেশের আভ্যন্তরীণ ও নিজস্ব বিষয় বলে জানিয়ে দিয়েছে। মোশতাক উত্তর দেয় তার আশা ভারত বাংলাদেশের বিষয়ে নাক গলাবেনা।

স্বীকৃতি লাভে মরীয়া মোশতাক

মোশতাকের অনুরোধে মাত্র এক ঘন্টার নোটিশে ২০শে আগস্টা বিকাল ৩টায় এক বৈঠকে অংশ নিতে দূতাবাসের রাজনৈতিক পরামর্শকসহ বঙ্গভবনে যান বোস্টার। কিন্তু দূতাবাসের কর্মকর্তাকে বাইরে পাঠিয়ে শুধু আমার সাথে আলোচনা করতে চায় মোশতাক।

শুরুতেই খুব আগ্রহ নিয়ে বোস্টার কবে দেশে ফিরে যাচ্ছে তা জানতে চায় মোশতাক। পরিকল্পনা বাতিল হয়েছে শুনে সে খুশি হয়ে যায় এবং বলে যে সে এটাই আশা করছিল! [অভ্যুত্থানের এক সপ্তাহ আগে বোস্টার মোশতাককে বলেছিল সে আমেরিকা ফিরে যাবে, কারন তাকে সিলেকশন বোর্ডের দায়িত্ব দেয়া হয়েছে]। এরপর স্বীকৃতি পাওয়ার জন্য বারবার তার হাত ধরে অনুনয় করছিল।

বোস্টারের এক প্রশ্নের জবাবে মোশতাক জানায় আগেরদিন সিদ্ধান্ত হয়েছে যে বাকশাল তথা এক-দলীয় ব্যবস্থা আর থাকছে না। তবে বহুদলীয় গণতন্ত্রে ফিরে যেতে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে।

বৈঠকের শেষে রাষ্ট্রদূতকে যেকোন সময় বঙ্গভবনে আসার দাওয়াত দেয় মোশতাক, এবং তার পক্ষ থেকে আমেরিকার রাষ্ট্রপতিকে শুভেচ্ছা জানাতে বোস্টারকে অনুরোধ করে। তবে সেই মুহুর্তে এভাবে শুভেচ্ছা জানানো কূটনৈতিকভাবে সমীচীন কিনা তাও জানতে চায় হতবিহ্বল মোশতাক।

আমেরিকার কাছে অস্ত্র চেয়েছিল জিয়া-ফারুক-রশীদ

রাষ্ট্রদূতের সাথে সেই বৈঠকে (২০শে আগস্ট) মোশতাক মূলত স্বীকৃতি আদায়ের চেষ্টা করে, এবং এর প্রয়োজনীয়তা ব্যাখ্যা করে। এছাড়া সম্ভাব্য আর কি কি ধরণের সহযোগীতা প্রয়োজন সে বিষয়ে স্পষ্ট করে কিছু বলেনি।

কিন্তু তার কিছুদিন পর নতুন সেনাপ্রধান মেজর জেনারেল জিয়াউর রহমান এবং পরে বঙ্গবন্ধুর হত্যাকারীদের অন্যতম মেজর ফারুক ও মেজর খন্দকার আব্দুর রশীদ আমেরিকান দূতাবাসের রাজনৈতিক পরামর্শকের সাথে সাক্ষাত করে সরাসরি সামরিক সহায়তা চায়।

উভয় ক্ষেত্রেই ভারতের সম্ভাব্য আক্রমন ঠেকানোর কথা বলা হয়।

ওয়াশিংটনে পাঠানো গোপন বার্তায় বোস্টার বলেন, ফারুক ও রশীদ ২১শে অক্টোবর দূতাবাসের রাজনৈতিক পরামর্শকের সাথে তার বাসায় সাক্ষাত করে আমেরিকার সামরিক সহায়তার জন্য অনুরোধ করে। তারা জানায় মোশতাকই তাদের পাঠিয়েছে।

এর আগে জিয়া বোস্টারের কাছে একই ধরণের সাহায্যের জন্য আবেদন করে। তবে বোস্টার তখন তাকে নিরাশ করেন।

ফারুক-রশীদের মতে, ভারত অবশ্যই বাংলাদেশ আক্রমণ করে মোশতাক সরকারকে উৎখাত করতে চাইবে এবং বাংলাদেশের সেনাবাহিনী ও পুলিশের সেই আক্রমণ প্রতিহত করার ক্ষমতা নেই। তবে ভারত সরাসরি আক্রমণ না করলেও এদেশের বিভিন্ন গোষ্ঠীকে মদদ দিতে চেষ্টা করতে পারে।

এছাড়া সোভিয়েত রাশিয়াও মোশতাক সরকারের জন্য হুমকি বলে তারা জানায়।

তারা বলে, পাকিস্তান ও চীন থেকে যে সাহায্য পাওয়া যাবে তা দিয়ে বহিঃশত্রুর আক্রমণ ঠেকানো সম্ভব না। সেক্ষেত্রে আমেরিকা সরাসরি বা তৃতীয় কোন দেশের মাধ্যমে সামরিক সরঞ্জাম দিতে পারবে কিনা জিজ্ঞেস করে খুনীরা।

বোস্টার লেখেন, অস্ত্র নয়, তারা চায় হেলিকপ্টার ও স্থলপথের যানবাহন যা দিয়ে দেশীয় বিভিন্ন সরকারবিরোধী সশস্ত্র গোষ্ঠীকে মোকাবেলা করা সম্ভব।

মেজরদের অনুরোধের প্রেক্ষিতে দূতাবাসের কর্মকর্তা তাদের বলেন এটা তার এখতিয়ারের মধ্যে পড়েনা। তিনি তাদেরকে পরামর্শ দেন তারা যেন ওয়াশিংটনে অবস্থিত বাংলাদেশের দূতাবাসের মাধ্যমে আমেরিকার পররাষ্ট্র দপ্তরের সাথে যোগাযোগ করে।

এই প্রস্তাবে মেজররা হতাশ হয়, কেননা তাদের ধারণা ছিল লিখিতভাবে অনুরোধ করলে আমেরিকান সরকার সেই আবেদন খারিজ করে দিতে পারে। তবে দূতাবাসের কর্মকর্তা বলেন তার ধারণা বাংলাদেশের অর্থনৈতিক অগ্রযাত্রাকে অব্যাহত রাখতে আমেরিকান সরকার সর্বোচ্চ চেষ্টা করবে।

মেজররা তখন জোর দিয়ে বলে যে, সুদূরপ্রসারী পরিকল্পনায় অর্থনৈতিক অগ্রগতি একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হলেও সেই মুহুর্তে সম্ভাব্য হুমকি মোকাবেলাই মূখ্য উদ্দেশ্য।

নিজের পর্যবেক্ষণে বোস্টার জানান, ভারতীয়রা সে মুহুর্তে কি করছে তা তার জানা নেই, তবে বাংলাদেশ সরকার কি ভাবছে সেটাই বেশি গুরুত্বপূর্ণ। তিনি বলেন ওয়াশিংটনের উচিত মেজরদের অনুরোধকে আমলে নেয়া।

বঙ্গবন্ধুকে হত্যায় আমেরিকার হাত ছিল, দৃঢ় বিশ্বাস অনেকেরই

বঙ্গবন্ধুর খুনীদের সাথে তৎকালীন আমেরিকান রাষ্ট্রদূতের যোগাযোগ এবং ওয়াশিংটনে পাঠানো গোপন বার্তায় মুজিবের বিরুদ্ধে অভ্যুত্থানের সম্ভাবনার কথা উল্লেখ করা, বাকশাল কায়েমের পর মুজিবকে স্বৈরাচার ও জনবিচ্ছিন্ন নেতা বলা এবং তাকে হত্যার পর বেশি আন্তরিক ও পশিমাঘেঁষা মোশতাক সরকারকে দ্রুত স্বীকৃতি দেয়া ইত্যাদি কারনে অনেকেরই ধারণা আমেরিকান দূতাবাসের কর্মকর্তারা ষড়যন্ত্রের বিষয়ে সবই জানতো, কিন্তু তা প্রতিহত করতে কোন ব্যবস্থা নেয়নি।

একবার তো শেখ হাসিনা রাষ্ট্রদূতকে জিজ্ঞেস করেই বসেন যে তাদের সরকার কোন কারনে তাকে বা তার দলকে অপছন্দ করে কিনা। আওয়ামী লীগ সভানেত্রী বলেন বাংলাদেশের জনগণ, বিশেষ করে তার দলের অনেক নেতাই মনে করেন আমেরিকা তাকে বা তার দলকে ক্ষমতায় আসতে দেওয়ার ঘোর বিরোধী।

রাষ্ট্রদূত অবশ্য বুঝতে পারেননি শেখ হাসিনা নিজেও এমনটি মনে করেন কিনা।

১৯৯১ সালের ১০ই জুলাই – বিএনপি ক্ষমতায় আসার চার মাস পর – রাষ্ট্রদূত উইলিয়াম ব্রায়ান্ট মিলমের সাথে বিশেষ সেই বৈঠকে তৎকালীন বিরোধীদলীয় নেত্রী শেখ হাসিনা আরো বলেন আওয়ামী লীগের অনেক নেতা-কর্মীর ধারণা পঁচাত্তরের ১৫ই আগস্ট সেনাঅভ্যুত্থানে বঙ্গবন্ধুকে হত্যার সাথে আমেরিকা কোন না কোনভাবে জড়িত ছিল।

তবে তার নিজের ধারণা কি ছিল তা এড়িয়ে যান।

তিনি বলেন এমন অবস্থায় আশির দশকে আমেরিকা সফর করাটা তার জন্য একটা বড় ঝুঁকি হয়ে দেখা দেয়। এ নিয়ে দলের বিভিন্ন স্তরে অনেকেই তার সমালোচনা করে। তবে এদের সংখ্যা খুব বেশি নয়।

শেখ হাসিনা মনে করেন হত্যাকান্ডের পরপর আমেরিকার উচিৎ ছিল অভিযোগগুলো গুরুত্বের সাথে দেখা এবং ভুল প্রমাণিত করা। তবে এ বিষয়ে বাংলাদেশের জনগণকে আস্থায় আনার সুযোগ এখনো আছে।

Bangabandhu-Hasinaবৈঠকে রাষ্ট্রদূত দাবী করেন আমেরিকা কোন দেশে কোন বিশেষ দলের প্রতি সমর্থন জানায় না, বরং জনগণের দ্বারা নির্বাচিত সব সরকারের সাথেই আন্তরিকভাবে কাজ করে। এমনকি তারা কোন দলের সব কর্মসূচীর সাথেও একমত নয়।

এর একদিন পর, ১১ই জুলাই ওয়াশিংটনে পাঠানো গোপন তারবার্তায় মিলম লেখেন, দুই ঘন্টার সেই বৈঠকে বিভিন্ন বিষয়ে শেখ হাসিনার প্রাণখোলা কথাবার্তা শুনে মনে হয়েছে তিনি দূতাবাস ও আমেরিকান সরকারের কাছে নিজের ও দলের ভাবমূর্তি আরো ভালো করতে চান।

উল্লেখ্য, মুক্তিযুদ্ধের সময় আমেরিকা পশ্চিম পাকিস্তানের পক্ষ নেয়। তাদের ঢাকাস্থ দূতাবাসের কর্মকর্তারা ১৯৭২ সাল থেকেই বঙ্গবন্ধুর হত্যাকারী ও ষড়যন্ত্রকারীদের সাথে নিয়মিত যোগাযোগ রক্ষা করে। তাছাড়া ১৯৭৫ সালের শুরু থেকে কয়েকবার ওয়াশিংটনে পাঠানো গোপনবার্তায় সম্ভাব্য সেনা অভ্যুত্থান সম্পর্কে আশংকা প্রকাশ করেন রাষ্ট্রদূত ডেভিস বোস্টার। কিন্তু সেসব তথ্য তিনি বঙ্গবন্ধুকে দেননি।

পরিকল্পনামাফিক বঙ্গবন্ধু নিহত হবার পরপর খুনীদের ক্রীড়ানক খন্দকার মোশতাকের সরকারকে আমেরিকা স্বীকৃতি দেয় এবং বাংলাদেশে তাদের সকল কর্মকান্ড চালু রাখার ঘোষণা দেয়; এমনকি নভেম্বরে খুনী ফারুক-রশীদকে রাজনৈতিক আশ্রয় দিতে আগ্রহ দেখায় আমেরিকা। বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর থেকে নভেম্বরের মধ্যে জিয়া-ফারুক-রশীদ রাষ্ট্রদূত ও অন্যান্য কর্মকর্তাদের সাথে দেখা করে সামরিক সহায়তার জন্য অনুরোধ করে, যা ওয়াশিংটনকে বিবেচনা করার জন্য বোস্টার সুপারিশ করে।

সরাসরি সিআইএ-কে দূষেছে কংগ্রেস, সিপিআই

১৮ই আগস্ট নয়াদিল্লীতে আয়োজিত এক শোকসভায় তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধী তার বার্তায় বঙ্গবন্ধুকে মহান নেতা ও রাষ্ট্রনায়ক হিসেবে অভিহিত করেন। তিনি বলেন ভারতের জনগণ বঙ্গবন্ধুকে তাদের একজন বন্ধু হিসেবে গভীর শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করবে।

সভায় উপস্থিত ভারতীয় কমিউনিস্ট পার্টির (সিপিআই) সাংসদ ভূপেশ গুপ্ত বলেন আমেরিকার সাম্রাজ্যবাদী শক্তি ও সিআইএ’র সমর্থনপুষ্টরাই মুজিবকে খুন করেছে।

একই দলের আরেক নেতা রমেশ চন্দ্র এপ্রিলে বাংলাদেশ সফরের সময় তিনি সেখানে অনেক সিআইএ’র এজেন্টকে দেখেছেন যারা উন্নয়ন-সহযোগী সংস্থাগুলোর হয়ে কাজ করছে। এই তথ্য মুজিবকে দেয়া হলে তিনি বলেন তিনি এসব কর্মকান্ডের কথা জানেন।

এছাড়া কমিউনিস্ট পার্টির সাধারণ সম্পাদক রাজেশ্বর রাও, কংগ্রেস সাংসদ সাত পাল কাপুর ও ভায়লার রবিও দাবী করেন ১৫ই আগস্টের সেনাঅভ্যুত্থানে সিআইএ জড়িত ছিল।

ভারতীয় পত্রিকায় প্রকাশিত এই খবর ওয়াশিংটনকে জানায় নয়াদিল্লীতে নিযুক্ত আমেরিকান রাষ্ট্রদূত উইলিয়াম সাক্সবে।

অন্যদিকে কলকাতায় কংগ্রেসের এক সভায় প্রিয়রঞ্জন দাশ মুন্সি বলেন মুজিব হত্যা আবারো প্রমাণ করলো এই উপমহাদেশে আমেরিকা ও চীন কতটা তৎপর।

বঙ্গবন্ধু হত্যার পর থেকে ভারতের মিডিয়াতে একের পর এক এধরনের বক্তব্য ছাপা হওয়ার প্রেক্ষিতে নয়াদিল্লীর আমেরিকান দূতাবাস চিন্তিত হয়ে পড়ে এবং মিডিয়ার উপর নিয়ন্ত্রণ আরোপ করতে সরকারকে আহ্বান জানায়। তবে সরকার এ বিষয়ে কোন ব্যবস্থা নিতে অস্বীকৃতি জানায়।

‘মোশতাক বেশিদিন টিকবে না’

আটই সেপ্টেম্বর কলকাতার কনসুলার অফিসের কর্মকর্তা কর্নের সাথে আলাপ করছিলেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যসচিব অশোক গুপ্ত। বললেন বাংলাদেশের পরিস্থিতি শান্ত হলেও মোশতাক সরকারের পরিণতি কি হবে বলা যাচ্ছেনা। সেনাবাহিনির একটা অংশ শেখ মুজিবের হত্যাকারী সেনা কর্মকর্তাদের বিচার দাবী করছে। তাই যদি ঘটে, সেক্ষেত্রে মোশতাকেরও বিচার হবে।

অশোক বলেন তার ধারণা সরকার পরিবর্তনের কারনে বাংলাদেশে সংখ্যালঘু হিন্দু সম্প্রদায়ের উপর নির্যাতন-নিপীড়ন বাড়বে। ফলে একাত্তর সালের মতো পশ্চিমবঙ্গকে আবারো একবার উদ্বাস্তু সমস্যা সামাল দিতে হবে।

এর আগে ৬ই সেপ্টেম্বর আমেরিকান দূতাবাসের এক কর্মকর্তার সাথে অবসরপ্রাপ্ত সেনা কর্মকর্তা নিলু সেনের সাক্ষাৎ হয়, যিনি বাংলাদেশে নিযুক্ত ভারতীয় হাইকমিশনার সমর সেনের ভাই এবং দূতাবাসের একজন নির্ভরযোগ্য সূত্র।

নিলু সেন বলেন মুজিবের বিকল্প খুঁজে পেতে খুনী সেনা কর্মকর্তাদের অনেক বেগ পেতে হয়েছে। মোশতাকের আগে তারা চার থেকে পাঁচজনকে রাষ্ট্রপতি পদ দেওয়ার প্রস্তাব করেছিল। এক পর্যায়ে নিলু সেন বলেন, “বাজী ধরে বলতে পারি, মোশতাক সরকার বেশিদিন টিকবেনা।”

‘এই সেই বোস্টার’

বোস্টার স্বাধীন বাংলাদেশের প্রথম আমেরিকান রাষ্ট্রদূত হিসেবে দায়িত্ব পান ১৯৭৪ সালে। এরপর ১৯৭৬ থেকে ১৯৭৯ পর্যন্ত গুয়াতেমালায় রাষ্ট্রদূতের পদে বহাল ছিলেন। ২০০৫ সালের ৭ই জুলাই হার্ট এটাকে মারা যান তিনি।

নভেম্বরের জেল হত্যা, সেনাবাহিনীতে আবার অভ্যুত্থান-পাল্টা অভ্যুত্থান আর মোশতাকের পতনের পর জেনারেল জিয়া ক্ষমতা দখল করলে মুজিব হত্যায় জিয়া, পাকিস্তান ও আমেরিকার ভূমিকা নিয়ে আবারো গুঞ্জন শুরু হয়।

সে সময় ভারতীয় কংগ্রেসের বাংলা পত্রিকা যুগান্তরের ১৮ই নভেম্বর সংখ্যার প্রথম পাতায় বোস্টারকে নিয়ে একটি প্রবন্ধ ছাপা হয়; শিরোনাম ছিল ‘চিলির মূল হোতা এখন ঢাকায়’। পাঠকদের কাছে তাকে অন্যরূপে পরিচয় করিয়ে দেয়া হয়। এবারেও প্রতিবাদ জানালো নয়াদিল্লীর আমেরিকান রাষ্ট্রদূত।

যুগান্তরের সেই খবরে যা ছিলঃ

বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পর ঢাকায় দায়িত্ব পান বোস্টার। পঁয়ত্রিশ থেকে চল্লিশ বছর বয়স হবে। তিনি সবসময়ই ব্যস্ত; একটা আটাচি কেস নিয়ে ঘোরেন, কখনো ভুলেও ফেলে যান না। অনেকদিন ধরে তাকে সেনানিবাসসহ ঢাকার বিভিন্ন জায়গায় দেখা গেছে। সাংবাদিকদের নিয়ে নিয়মিত ডিনার; কখনো বা সেনা কর্মকর্তাদের নিয়ে।

মুজিব হত্যার পর জেল হত্যা ও জিয়ার ক্ষমতা দখল; বোস্টার এখন ব্যস্ত জিয়ার বলয়ের লোকদের নিয়ে। তিনি কি এই অবস্থায় একটি বিশেষ ভূমিকা নিতে পারতেন না? উত্তরটা হয়তো দীর্ঘ হবে। কিন্তু এটাই সত্য যে, ১৯৭৩ সালের ১১ই সেপ্টেম্বর চিলির সেনাবাহিনী যখন রাষ্ট্রপতি সালভাদর এল্যান্ডেকে হত্যা করে তখন সেখানকার আমেরিকান দূতাবাসের চার্জ দ্য এফেয়ার্স ছিলেন বোস্টার।

ধর্ষণ ও পরিত্যক্ত নবজাতক সমাচার

ডাস্টবিনে বা ঝোপঝাড়ে ফেলে যাওয়া নবজাতক শিশুর দেখা পেলেই আমরা সবাই “হায়, হায়” করে উঠি। ঠিকমতো না জেনেই এর জন্য প্রথমেই দায়ী করা হয় দুইজন মানুষের “অনৈতিক” শারীরিক সম্পর্ককে।
 
অথচ বাংলাদেশের মিডিয়ার মাধ্যমে এ যাবত এ ধরণের যত ঘটনা শুনেছি একটি বাদে কোনটির রহস্য উন্মোচিত হয়নি। মানে বাবা-মাকে পাওয়া যায়নি।
 
শুধু একটি ঘটনার পেছনের ঘটনা জানতে পেরেছি।
 
গত পহেলা ফেব্রুয়ারি বেইলি রোডের একটি বাড়ির ছয়তলা দিয়ে ফেলে দেয়া শিশুটি আজ মারা গেছে। তার মা এখনো মানসিকভাবে বিপর্যস্ত। কারণ শিশুটি ধর্ষণের ফসল। মেয়েটির ভগ্নিপতি ঘুমের ওষুধ খাইয়ে তাকে ধর্ষণ করেছিল।
 
সেই ধর্ষকের গ্রেপ্তার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবী করছি এবং আশা করি স্পর্শকাতর এ ধরণের বিষয়ে সবাই আরো সচেতনভাবে প্রতিক্রিয়া দেখাবে। তিন সপ্তাহ ধরে ঢাকা মেডিকেলে চিকিৎসাধীন অবস্থায় থাকার পর দুদিন আগে শিশুটি কেন এত অসুস্থ হয়ে পড়লো সেটা এখনো জানা যায়নি।
উদ্ধারের পর পর চিকিৎসকরা জানিয়েছিলেন, নবজাতকটি নড়াচড়া একটু কম করছে। অনেক ওপর থেকে পড়ায় তার মস্তিষ্কে হালকা আঘাত রয়েছে। তবে তা গুরুতর নয়।
 
কিছুদিন আগে জানলাম জার্মানীতে কিছু সরকারি সেন্টার আছে যেখানে চাইলে কেউ নবজাতকদের রেখে আসতে পারে। সেটা ধর্ষণের ফলশ্রুতিতে জন্ম নেয়া শিশু হতে পারে বা তার বাবা-মা সন্তান পালনে আর্থিক বা সামাজিকভাবে অক্ষম হলেও হতে পারে।
এ ধরণের জনকল্যানমূলক উদ্যোগ হয়তো বাংলাদেশে সম্ভব নয়। কিন্তু বিষয়টি ভাবনার উদ্রেগ করে বৈকি, অন্ততঃ দেশে যখন ধর্ষণ-গনধর্ষণ মহামারীর আকার ধারণ করেছে।

র‍্যাগিংঃ একটি অমানবিক বিনোদন মাধ্যম

ragging_stopর‍্যাগিং দেখেছিলাম ২০০০ সালের নভেম্বরের কনকনে শীতের রাতে, জাহাংীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে।
নিজের হলে জায়গা না পেয়ে অন্য হলের অচেনা আরো দুইজনের সাথে একটা রুমে ঘুমিয়ে পড়েছিলাম। রাত দুইটা/তিনটার দিকে চিল্লাপাল্লা শুনে যখন ঘুম ভাংলো দেখি তিন/চারজন লোক আমাদের ডাকছে।
আমাদের চোখ কচলা-কচলি অবস্থা দেখে তারা খুব হাসছিল। আমাদের পরিচয়, বিভাগ, হলের কথা জিজ্ঞেস করেছিল। বেশিক্ষন না, কয়েক মিনিট। আর মনে নেই। পরে বুঝেছিলাম এরা একটু অন্যরকম বড় ভাই ছিল। কেননা চারপাশে আরো অনেকেই তাদের হলে, বিভাগে বা আড্ডার জায়গায় র‍্যাগ খেয়েছিল বাজেভাবে, নানা অজুহাতে।
সেইসব বাজে র‍্যাগিং-এর সাথে যারা জড়িত ছিল তারা সবাই রাজনৈতিক দলের নেতা-কর্মী, যারা নিজেদের ছাত্র ভাবতে পারেনা; ভাবে তারা শিক্ষার্থীদের অভিভাবক টাইপের কিছু একটা। তবে সেটা শুধুই শাসন করার সময়; এদের কাছে কোন সহযোগিতা পাওয়া দুষ্কর ছিল। পদে পদে সাধারণ শিক্ষার্থীদের অমানবিকভাবে হেনস্তা করাই তাদের দলীয় কর্তব্য বলে মনে হতো।
আইন সম্পর্কে ধারণা না থাকার কারনে বুঝতেই পারিনি র‍্যাগিং একটা অপরাধ। নাহলে হয়তো ভুক্তভূগীদের বলতাম আইনের সাহায্য নিতে। পরিচয় যাই হোক, অমানুষদের আইনের আওতায়া আনা প্রত্যেক সচেতন নাগরিকের দ্বায়িত্ব।
নোটঃ আমি যাদের দ্বারা র‍্যাগিং-এর শিকার হয়েছিলাম তারাও তখনকার সরকারদলীয় কর্মী ছিল, কিন্তু লাফাঙ্গা টাইপের কিছু না। এদের সাথে পরে অনেক সহজ সম্পর্ক হয়েছিল।

ফ্রুটিকার প্রতারণা, দূষণ, তদুপরি শ্রেষ্ঠ ব্র্যান্ড হিসেবে নির্বাচিত হওয়া

Frutika_Dec 1.jpgগত দুইদিনে দুইটি প্রধান দৈনিকে এদের বিজ্ঞাপনটা দেখে নিজেকে খুব অসহায় মনে হচ্ছিল। বিজ্ঞাপনের ভাষা এমন যে তারা ২০১২ থেকে টানা চারবার শ্রেষ্ঠ ব্র্যান্ড হিসেবে নির্বাচিত হয়েছে!

অথচ গত ২৭ অক্টোবর বিশুদ্ধ খাদ্য আদালতের বিচারক স্পেশাল ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ মাহবুব সোবহানী ক্ষতিকর ফ্রুটিকা জুস উৎপাদন, সরবরাহ ও ১০০ ভাগ পিওর ঘোষণা দিয়ে প্রতারণার অভিযোগে আকিজ ফুড অ্যান্ড বেভারেজের দুই কর্তা শেখ বশিরউদ্দীন এবং শেখ জামিলকে ২ লাখ ৬০ হাজার টাকা এবং বিক্রেতা মোহাম্মদ আজিজুল হক সর্দারকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা করেন।

বিসিএসআইআর-এর এক পরীক্ষায় দেখা যায়, ১০০ ভাগ প্রিজারভেটিভ বিহীন ঘোষণা দেওয়া হলেও ফ্রুটিকায় মানব দেহের জন্য ক্ষতিকর মারাত্মক ৬১% সোডিয়াম বেনজোনাইট৬৪% সালফার ডি অক্সাইড রয়েছে। এই দুই রাসয়নিকের একত্রে ব্যবহারে মানবদেহে ভয়ঙ্কর ক্যান্সার সংক্রমতি হতে পারে বলে প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়।

আদালত তার রায়ে মিথ্যা ও বিভ্রান্তিকর ফ্রুটিকা ম্যাঙ্গো ফ্রুট জুস বা পিওর ফ্রুটিকা জুস বিজ্ঞাপন যাতে ভবিষ্যতে প্রচারিত না হতে পারে সে বিষয়ে ব্যবস্থা নিতে তথ্য মন্ত্রণালয়কে নির্দেশনা দেন।

এর আগে ২২শে এপ্রিল পরিবেশ ও জলজ জীববৈচিত্রের ক্ষতি করায় ধামরাই উপজেলার কুষ্ণপুরা এলাকার ফ্রুটিকা উত্পাদনকারী আকিজ ফুড অ্যান্ড বেভারেজ লিমিটেডের কারখানাকে পাঁচ লাখ টাকা জরিমানা করেছে পরিবেশ অধিদপ্তর।

দুর্নীতি, অব্যবস্থাপনা এদেশে এতো ই মারাত্মক যে, এত কিছুর পরেও ব্যবসাবান্ধব বাংলাদেশের মিডিয়া এই আদালতের তথ্য জনগনকে জানতে দেয় না, আর ফ্রুটিকারা প্রধান প্রধান দৈনিকে বিজ্ঞাপন দেয়, দোকানীরা ফ্রুটিকার বোতল সাজিয়ে রাখে আর পাবলিক পিওর ভেবে ফ্রুটকা খেতেই থাকে।

 

মাম-এর মামদোবাজী

পারটেক্স কোম্পানীর ৫লিটার পানির বোতল কিনলাম। বোতলের আকার-আকৃতি, ধরণ পাল্টেছে; মজবুত হাতল লাগিয়েছে; মুখটাও বড়। দেখলাম দামটাও ১০টাকা বেশি। কিন্তু যখন দেখলাম পানি ৫০০ মিলিলিটার (আধা লিটার) কম, তখন আর মেনে নেবার কোন জো নেই। মেজাজ বিগড়ে গেল।

এবার খেয়াল হলো আধালিটার ছোট বোতলেও পরিবর্তন এসেছে। এখানে বোতলটা মনে হলো আগের চেয়ে একটু হালকা। কিন্তু খারাপ বিষয়টা হলো মুখে। বোতলের মুখটি আগের চেয়ে অনেক নিম্নমানের। ঠিকমতো বন্ধ করা যায় না; প্যাচটা ভালো না, পানি গড়িয়ে পড়ে। আবার এর দামটা দেখেন, ১০ না ১২ না, ১৫টাকা!

“আমার ক্ষমতা আছে, আমি যা খুশি তাই করবো” -টাইপ অবস্থা!