Finally shameless police admit DU sexual assaults!


After a long drama of denial and intimidation on protesters for over a month, Dhaka Metropolitan Police on Sunday acknowledged the incidents of massive sexual assault of women and children on Dhaka University campus on April 14.

Eight sex offenders
Eight sex offenders

They’ve declared a bounty of Tk1 lakh for the arrest of eight people found involved in the acts so far.

However, print and electronic media and Facebook activists gave more photos!

Having proof in hand, police denied having identified anyone, blamed media for exaggerating the trivial incidents and mercilessly beat up protesters for seeking justice! They were trying to relieve the culprits by mentioning that no victim had filed a complaint!!!

To the police chief it was naughtiness by some youths. He also termed Liton Nandi, one of the three Bangladesh Chhatra Union leaders who rescued a woman undressed in public, liar!

BSU activists have been staging protests since April 15 where people from different quarters expressed solidarity.

Thanks to some Facebook pimageages who created mass awareness by circulating photos and identities of over a dozen culprits, linked to ruling party’s student wing Bangladesh Chhatra League.

This is why police and Awami League leaders have been trying to downplay. Last month admins of a popular Facebook page Moja losss? was threatened with death prompting them to remove the photo posts.

image
image

image

On May 10 police baton charged, punched and kicked Chhatra Union activists including women during a protest against police’s inaction to probe the allegations.

So far three police officials have been found responsible for facing to perform properly and releasing two of the culprits caught by Liton Nandi and his fellows. But no action is visible as yet!

Why are you so unsmart dear police?

বর্ষবরণে সংগঠিত যৌন নিপীড়নের ঘটনা বাংলাদেশের সকল মানুষের কাছে আর অজানা নয়।যৌন নিপীড়নের ঘটনা ঘটেছিল কিনা এটা নিয়ে অনেক জল্পনা-কল্পনা তৈরী করা হয়েছিলো বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসন থেকে। কিন্তু সমগ্র বাংলাদেশের মানুষ পুলিশের সরবরাহকৃত সিসিটিভি ফুটেজের মধ্য দেখেছে ঐ দিন কি ধরনের সভ্যতা বিবর্জিত ঘটনা ঘটেছিল। যা হোক এ ঘটনার আর বিস্তৃত বিবরণে যাচ্ছি না।
তবে কিছুটা আশার আলো হচ্ছে যে ঘটনার ৩৩ দিন পর পুলিশ ৮ জন যৌন সন্ত্রাসীর ছবি প্রকাশ করেছে।

আমি ব্যক্তিগতভাবে ডিবি অফিসে ৪-৫ দিন গিয়ে ৪-৫ জনকে চিহ্নিত করেছিলাম, আমরা বার বার পুলিশের বিভিন্ন স্তরের কর্মকর্তাদের বলেছিলাম আপনারা ছবিগুলো বিভিন্ন গণ মাধ্যমে প্রকাশ করুন। আমরা এমনকি গত দুদিনে ডিআইজি এবং ডিএমপি যুগ্ম কমিশনারকে অনুরোধ করেছি ছবিগুলো প্রকাশ করতে।
যাইহোক ৩৩ দিনপর ছবি গুলো প্রকাশ করা হলো। এটি বর্ষবরণে সংঘঠিত নিপীড়নের নমুনা মাত্র। এ ছবিগুলো প্রকাশের মধ্য দিয়ে পুলিশের মহা পরিদর্শকের কথার অসারতা প্রকাশ পেয়েছে। তবে আমরা এই ঘটনা শুধুমাত্র ছবি প্রকাশের মধ্যে সীমাবদ্ধ দেখতে চাই না।
পুলিশ জনগনের সহায়তা চেয়েছেন,এটা চাইতেই পারেন। কিন্তু মূল অপরাধীদের পুলিশকেই চিহ্নিত করতে হবে। অতি দ্রুত সময়ের মধ্যে এই সকল যৌন সন্ত্রাসীদের বিচারের আওতায় এনে শাস্তি বিধান করা হোক।

আবারো বলতে চাই,বিচারহীনতার সংস্কৃতি কিংবা অন্য কোন ঘটনার দ্বারা যেন বর্ষবরণে নিপীড়িত নারীদের আর্তনাদ যাতে চাপা পড়ে না যায়।

One comment

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s