Fanatics vs Scholars over Shahbagh ‘atheists’


This slideshow requires JavaScript.

Confrontation over ‘atheist’ issue has been mounting high amid government steps and court’s directions to stop propaganda against Islam and the Occupy Shahbagh protesters, who are demonstrating since February 5 to demand capital punishment for all war criminals and a ban on Jamaat-e-Islami, top leaders of which are the identified war criminals and are facing trial at the tribunal. They planned and formed Peace Committee, Razakar, Al-Badr, Al-Shams to assist the Pakistani army in carrying out genocide, murder, rape, loot and arson attacks on the unarmed Bangladeshi people in 1971.

It’s now very easy to know ‘who is on which side’ after the Shahbagh Protest started since the pro-liberation citizens in Bangladesh and abroad have expressed solidarity with the cause en masse, and on the other side, the friends of Jamaat and its student front Islami Chhatra Shibir, also known as its striking force on the streets and the cyber world, are campaigning violently against the trial and the Shahbagh.

The main opposition BNP has always been with Jamaat since the 2001 polls. Even though the BNP has been demonstrating since 2011 for a caretaker government, it has now extended its full support towards Jamaat’s agitation against the trial.

People laugh to see that the Jamaat has grasped the BNP, which was formed by former military dictator and a brave freedom fighter Ziaur Rahman after he captured power. Zia had stopped the trail underway in 1975 and released around 11,000 collaborators and soon allowed their leader Ghulam Azam in Bangladesh politics.

So, people aren’t confused yet and have vowed to complete the trial to finish the unfinished task pending since the independence of Bangladesh on December 16, 1971 after a nine-month bloody war.

For standing against the Jamaat-Shibir demons, the ordinary people of the country, the non-Muslims and the Shahbagh supporters have been the subject to attacks and threats for about two months. The quick spread of the Shahbagh spirit has made them go crazy as the existence of Jamaat-Shibir will be at stake if Shahbagh could continue its agitation. The Shahbagh protesters have been demanding ‘death penalty’ fearing the culture of impunity, a common thing in the country’s political history. And the demand for imposing ban on Jamaat’s politics is backed by the tribunal’s first verdict that said Jamaat as a political party was involved in the conspiracy and genocide-rape and other crimes against humanity in 1971.

It’s widely believed and to some extent proved that Jamaat has been operating in Bangladesh with the help of the BNP, a section of the army and their men already established at thousands of mosques and madrasas.

We’ve seen in the early March attacks by the supporters of Jamaat-Shibir when they used children of madrasas to swoop on the state’s police and installations; and the non-Muslim temples, habitats and businesses in the name of ‘protests against the tribunal’.

The ‘issue of atheism’ came in mid-February when a blogger-architect Ahmed Razib Haider was brutally murdered on the 15th in the hands of Shibir activists. Within days, police nabbed 5 students of North South University who confessed to have committed the murder under the influence of a Shibir activist. Last week, it was revealed that these students were involved with a militant organisation named Ansarullah Bangla Team, an al-Qaeda group. The killers said that they found it ‘a must to kill Razib as he was an atheist’ and engaged with the Shahbagh movement.

Yes, the Jamaat-Shibir was successful in frightening the protesters as the number of participants shrank down but the agitation continued non-stop, until February 21, the National Martyrs Day. But the Jamaat-Shibir leaders kept fuelling the pious Muslims against Shahbagh.

After the news of murder spread, the Shibir-aided cyber elements said Razib was an atheist as he wrote blogs criticising Islam and Prophet Muhammad. But as evidence, they produced a fake blogsite in WordPress where the blogs were posted in suspicious dates. Within a day, the Shahbagh activists discovered that that site was launched a day after the murder.

But on February 17, national Bangla newspaper daily Inqilab published part of the posts and the next day Amar Desh, another Bangla daily, published the whole texts — only to provoke hatred and violence. Really, a mass violence spread on February 22 before the Johr prayers in Dhaka’s national mosque and elsewhere after the prayers when the fanatics — 12 Islamist parties in the opposition alliance and the Jamaat-Shibir — carried out violent attacks on the police, the stages erected in support of the Shahbagh Movement, the martyrs’ monuments and even set fire to national flags in two districts and brought out a rally in a southern district with the flag of Pakistan!

The BNP, in reaction, slammed the government for obstructing the Islamists from carrying out ‘peaceful protests’ against the atheists. Soon it was heard that the government and its supporters are also ‘atheists’ as the police maintain their patrol around the stages in Dhaka and outside.

Even though the Shahbagh leadership explained that there could be one or two persons, who are atheists, linked with the Shahbagh Movement, but everyone could not be blamed for that because there have been millions of people who have supported the cause and most of them attended the gatherings.

The prime minister also clarified its stance by saying that anyone maligns a religious belief won’t be speared, and the government formed high-powered committee to look into the allegations of radical ‘atheism’.

But the Jamaat-Shibir leadership isn’t happy. And when the verdict in the case against Delawar Hossain Sayedee was given on February 28, the Jamaat-Shibir men in a pre-planned way launched the most gigantic attacks on the state and the non-Muslims. The attacks lasted massively for at least a week until the BNP took to the streets and started echoing the Jamaat-Shibir concerns.

Now the BNP also terms the Shahbagh protesters ‘atheists’ and demands their punishment. It also terms the police fire on Jamaat-Shibir’s ‘peaceful protests’ fascism and the deaths of ‘170 people’ a genocide. The death toll varies from 120-170 of which at least 10 are police members, 30 are ordinary people, several are non-Muslims and the rest are the ‘attackers’.

The violence has eased now, but planned murder and attacks on the pro-liberation people have been going on as we witnessed half a dozen murders in the last two weeks.

From early March, some Islamist parties and scholars started speaking their minds, they stood against the Jamaat-Shibir evil force and revealed its fraud & terror activities carried out in the name of Islam. But soon they met an enemy, Hefazat-e-Islam [protector of Islam], which has ever been threatening the pro-liberation protesters terming them ‘atheists’ and enemy of Islam, and obstructing the Shahbagh events. Hefazat earlier spoiled a protest rally in Chittagong on March 13 when the Shahbagh leadership was supposed to join.

These parties and individuals have been threatened with life by the radical Islamist parties, including the Jamaat-Shibir, which leads the opposition alliance now, Hefazat, and latest Khelafat Andolon.

Hefazat-e-Islam on March 9 declared a road march towards Dhaka from all districts for April 6.

Human chain at all upazila level on March 12, nafal roza and one hour sit-in on March 15 to discuss prophet’s supremacy, besiege of upazila offices on March 25 and memorandum to PM.

The latest threat is unacceptable: the youth front of Khelafat Andolon Wednesday vowed to resist the Motijheel mass rally of March 23 called by Bangladesh Olama Mashaekh Sanghati Parishad, led by Maulana Fariduddin Masud, imam of Sholakia Mosque, demanding a ban on Jamaat and capital punishment to all war criminals.

According to the scholar, Jamaat is an enemy of Islam. It is importing religious extremism in the country in the name of Islam. The Khelafat Andolon, however, claims that the imam is speaking in favour of the ‘atheists’ and is misguiding other Islamic scholars.

Now it seems that the Islamists have divided in two main sections — one pro-liberation and the other supporting the opposite. Need to see a soothing end.

Join the Facebook event to assist the victims of Jamaat-Shibir attacks

BNP CREATES ISSUE TO ENDORSE JAMAAT VIOLENCE!

WHAT THE JAMAAT-SHIBIR DOING PROTESTING WAR CRIMES VERDICT

ATTACKS CONTINUE ON STATE, AGAINST SHAHBAGH & WAR CRIMES TRIALS

Fundamentalists’ hullaballoo & Khaleda

WE’RE IN SHAHBAGH TO HANG WAR CRIMINALS

‘Shahbagh upset with BNP’

JAMAAT’S ADMITTING GENOCIDE IN BANGLADESH, AND CORRECTION!

বাংলায় সাম্প্রতিক কিছু বিষয়ঃ 

http://prothom-alo.com/detail/date/2013-03-20/news/338106

হেফাজতে ইসলাম আসলে ইসলাম নয়, জামায়াতে ইসলামীর হেফাজত করছে বলে অভিযোগ করেছেন বাংলাদেশ ইমাম-ওলামা সমন্বয় ঐক্যপরিষদ।
আজ বুধবার সকালে জাতীয় প্রেসক্লাবে ঐক্যপরিষদের এক সংবাদ সম্মেলন থেকে এ অভিযোগ করা হয়।
পরিষদের সভাপতি মো. ইসমাইল হোসেন বলেন, দেশে যখন যুদ্ধাপরাধের বিচার চলছে, তখন সেই বিচার নস্যাত্ করার ষড়যন্ত্র হিসেবে ইসলামকে ব্যবহার করা হচ্ছে। হঠাত্ করে হেফাজতে ইসলাম নামের সংগঠনের উদয় হয়েছে। তারা ইসলামের নামে দেশ ও নতুন প্রজন্মকে মুরতাদ বলছে। ওরা আসলে ইসলাম নয়, জামায়াতে ইসলামীর হেফাজতের কাজে লিপ্ত।
হেফাজতে ইসলামকে জামায়াতে ইসলামীর উল্টা পিঠ আখ্যা দিয়ে ইসমাইল হোসেন বলেন, জামায়াতের বি টিম হিসেবে কাজ করছে দলটি। নৈরাজ্য সৃষ্টির ষড়যন্ত্র করছে।
ইমাম ওলামা সমন্বয় ঐক্যপরিষদের সভাপতি বলেন, হেফাজতে ইসলামের আমির আল্লামা শাহ আহম্মদ শফী একজন ভালো মানুষ। এ সুযোগ নিয়ে রাজাকারেরা তাঁদের ভুল পথে পরিচালিত করছে। তিনি শফীকে রাজাকারদের সঙ্গ ত্যাগ করার আহ্বান জানান।
ইসলামবিদ্বেষী ব্লগারদের অপতত্পরতা বন্ধ এবং তাদের গ্রেপ্তার করতে ৯ মার্চ দাবি জানায় হেফাজতে ইসলাম। এ দাবিতে কওমি মাদ্রাসাভিত্তিক বিভিন্ন দল ও সংগঠনসহ আলেম-ওলামাদের সমন্বয়ে গঠিত সংগঠনটি আগামী ৬ এপ্রিল সব জেলা থেকে ঢাকামুখী লংমার্চ কর্মসূচির ঘোষণা দিয়েছে। লংমার্চে বাধা দেওয়া হলে পরদিন থেকে লাগাতার হরতালেরও হুমকি দেওয়া হয়। চট্টগ্রামের হাটহাজারী মাদ্রাসার (দারুল উলুম মঈনুল ইসলাম) মিলনায়তনে জাতীয় ওলামা-মাশায়েখ সম্মেলনে লংমার্চসহ মাসব্যাপী বিভিন্ন কর্মসূচির ঘোষণা করা হয়। সম্মেলনে সভাপতিত্ব করেন হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের আমির ও হাটহাজারী মাদ্রাসার মহাপরিচালক আল্লামা শাহ আহম্মদ শফী।
হেফাজতে ইসলামীর হরতাল এবং পুলিশের নিষেধাজ্ঞা মিলিয়ে উত্তেজনার মধ্যে চট্টগ্রামের সমাবেশ স্থগিত করেছে গণজাগরণ মঞ্চ।

RELATED STORIES

12 March 2013

12 March 2013

12 March 2013

12 March 2013

08 March 2013

বুধবার চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের সামনে এই সমাবেশ হওয়ার কথা ছিল।

হেফাজতে ইসলাম এই সমাবেশ প্রতিহত করার ঘোষণা দিলে পুলিশ বুধবার বন্দর নগরীতে সব ধরনের সমাবেশ-মিছিলে নিষেধাজ্ঞা দেয়।

এর মধ্যেই রাত সোয়া ৮টার দিকে সমাবেশস্থল চট্টগ্রাম প্রেসক্লাবের সামনে কয়েকটি হাতবোমার বিস্ফোরণ ঘটে।

এর পৌনে এক ঘণ্টা পর প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে চট্টগ্রাম গণজাগরণ মঞ্চ সমাবেশ স্থগিতের ঘোষণা দেয়।

এদিকে সমাবেশ স্থগিতের পর হেফাজতে ইসলাম তাদের হরতাল কর্মসূচিও স্থগিত করেছে।

গণজাগরণ মঞ্চের অন্যতম সংগঠক মফিজুর রহমান সংবাদ সম্মেলনে বলেন, “আমরা শুরু থেকেই বলেছি, গণজাগরণ মঞ্চ অহিংস আন্দোলন করে আসছে, আমরা কোনো সহিংসতা চাই না।

“এই কারণে শান্তি শৃঙ্খলা রক্ষা, আইনের প্রতি শ্রদ্ধা এবং সহিংসতা এড়াতে চট্টগ্রামের এ মহাসমাবেশ স্থগিত করা হল।”

তিনি বলেন, “আমরা কোনো রক্তপাত চাই না এবং মানুষের জানমালের কথা বিবেচনা করে এ কর্মসূচি স্থগিত করেছি।”

চট্টগ্রামে সমাবেশের পরবর্তী দিনক্ষণ শাহবাগের সংগঠকদের সঙ্গে আলোচনা করে ঠিক করা হবে বলে সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়।

চট্টগ্রামের সংগঠকরা এই সিদ্ধান্ত নেয়ার পর শাহবাগের গণজাগরণ মঞ্চের পক্ষ থেকেও সমাবেশ স্থগিতের বিষয়টি জানানো হয়।

প্রজন্ম চত্বরে রাত ১১টার দিকে এক বিবৃতিতে জানানো হয়, সমাবেশ না হলেও মঞ্চের একটি প্রতিনিধি দল বুধবার চট্টগ্রামে যাবে। তারা চট্টগ্রামের সুধী সমাজসহ আলেমদের সঙ্গেও কথা বলবেন।

হরতাল আহ্বানকারী হেফাজতে ইসলামের প্রতিও আলোচনায় বসার আহ্বান জানিয়েছে গণজাগরণ মঞ্চ।

যুদ্ধাপরাধীদের সর্বোচ্চ শাস্তির দাবিতে গত ৫ ফেব্রুয়ারি শাহবাগে গণজাগরণ আন্দোলনের সূচনা ঘটে। পরে তা অন্য জেলাগুলোতেও ছড়িয়ে পড়লে চট্টগ্রামেও গঠিত হয় গণজাগরণ মঞ্চ।

গত ৬ ফেব্রুয়ারি থেকে জামাল খানে প্রেসক্লাবের সামনে গণজাগরণ মঞ্চের কর্মসূচি চলছিল। আন্দোলন সারাদেশে ছড়িয়ে দেয়ার ঘোষণা দিয়ে চট্টগ্রামে ১৩ মার্চ সমাবেশ ডাকা হয়েছিল, যাতে ঢাকা থেকে মূল সংগঠকদের অংশ নেয়ার কথা ছিল।

কিন্তু শাহবাগবিরোধী হেফাজতে ইসলাম গণজাগরণ সমাবেশের বিরোধিতা করে বুধবার হরতাল ডাকে।

পাশাপাশি গণজাগরণ আন্দোলনের সমাবেশস্থলসহ লালদীঘি ময়দান এবং স্টেশন রোডে সভা করার ঘোষণা দেয়।

মঙ্গলবার রাতের সংবাদ সম্মেলনে যুদ্ধাপরাধীদের সর্বোচ্চ শাস্তি এবং জামায়াত নিষিদ্ধের দাবিতে চট্টগ্রাম গণজাগরণ মঞ্চের আন্দোলন প্রতি শুক্রবার বিকাল ৩টা থেকে চলবে বলেও ঘোষণা দেয়া হয়।

হাতবোমা বিস্ফোরণ

গণজাগরণ মঞ্চের সংবাদ সম্মেলনের আগে রাত সোয়া ৮টার দিকে প্রেসক্লাবের সামনে হাতবোমার বিস্ফোরণ ঘটানো হয়।

বিস্ফোরণের সময় গণজাগরণ মঞ্চের কোনো কর্মী বা সংগঠক সমাবেশস্থলে ছিলেন না। তবে তাদের অনেকে প্রেসক্লাবে ছিলেন।

প্রেসক্লাব সাধারণ সম্পাদক মহসিন চৌধুরী বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “আতঙ্ক ছড়ানোর জন্য কেউ এই হাতবোমার বিস্ফোরণ ঘটিয়েছে বলে মনে হচ্ছে।”

বিস্ফোরণে একজন আহত হয়েছেন বলে জানান তিনি।

সমাবেশস্থলে হাতবোমার বিস্ফোরণ ঘটানোর প্রতিবাদে বৃহস্পতিবার প্রতিবাদ সমাবেশের ঘোষণা দিয়েছে গণজাগরণ মঞ্চ।

মফিজুর রহমান বলেন, “গণজাগরণ মঞ্চের কর্মীদের উস্কানি দিতে জামায়াত-শিবির চক্র পরিকল্পিতভাবে এ হামলা চালায়।”

মিছিল-সমাবেশে নিষেধাজ্ঞা থাকছে

দুই পক্ষের মুখোমুখি অবস্থানে চট্টগ্রাম মহানগর পুলিশ তিনটি স্থানে সমাবেশের ওপর নিষেধাজ্ঞা দেয়।

এরপরও হেফাজতে ইসলাম গণজাগরণ সমাবেশ প্রতিহত করার হুমকি দিয়ে এলে মঙ্গলবার পুলিশ জানায়, বুধবার বন্দর নগরীর কোথায় সমাবেশ-মিছিল করা যাবে না।

পুলিশ কমিশনার মোহাং শফিকুল ইসলাম রাতে বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “উদ্ভুত পরিস্থিতিতে বুধবার নগরীতে সভা-সমাবেশে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে।”

সকাল ৬টা থেকে রাত ১২টা পর্যন্ত নগরীতে এই নিষেধাজ্ঞা থাকবে বলে জানান তিনি।

তিনি বলেন, “গণজাগরণ মঞ্চ ও হেফাজত ইসলামের অনড় কর্মসূচির কারণে মহানগরীর নাগরিকদের জানমালের নিরাপত্তার কথা ভেবে এ নিষেধাজ্ঞা দেয়া হয়েছে।”

বন্দর নগরীর কোথাও সভা-সমাবেশ ও মিছিল করা যাবে না বলেও জানান কমিশনার।

নিষেধাজ্ঞা আরোপের পর গণজাগরণ মঞ্চ সমাবেশ স্থগিতের ঘোষণা দিলেও নিষেধাজ্ঞা বলবৎ থাকবে বলে জানান পুলিশ কর্মকর্তারা।

গণজাগরণ মঞ্চের বক্তব্য

বিকালে চট্টগ্রাম গণজাগরণ মঞ্চ সমাবেশের জন্য পরিস্থিতি স্বাভাবিক করতে প্রশাসনের প্রতি আহ্বান জানিয়েছিল।

চট্টগ্রাম গণজাগরণ মঞ্চের সমন্বয়কারী শরিফ চৌহান সংবাদ সম্মেলনে বলেন, “শান্তিপূর্ণভাবে বুধবারের কর্মসূচি পালিত হোক এবং চট্টগ্রামে শান্তিপূর্ণ পরিস্থিতি বিরাজ করুক এটা আমরা সকলেই চাই। আমাদের কর্মসূচি অহিংস ও শান্তিপূর্ণ।”

গণজাগরণ মঞ্চের পক্ষ থেকে হেফাজত ইসলামের প্রতি হরতাল প্রত্যাহারের আহ্বানও জানানো হয়।

জামায়াতবিরোধী গণজাগরণ আন্দোলনে ‘অনৈসলামিক’ কর্মকাণ্ড হচ্ছে দাবি করে কয়েকটি ইসলামী দল শাহবাগের আন্দোলনের বিরুদ্ধে কর্মসূচি দেয়। চট্টগ্রামভিত্তিক হেফাজতে ইসলাম এর একটি।

গণজাগরণ মঞ্চের পক্ষ থেকে অবশ্য বলা হচ্ছে, ইসলামসহ কোনো ধর্মের অনুভূতির ওপর কোনো ধরনের আঘাত হানার উদ্দেশ্য তাদের নেই। শুধু যুদ্ধাপরাধী দল হিসেবে জামায়াতে ইসলামীকে নিষিদ্ধের দাবি রয়েছে তাদের।

যুদ্ধাপরাধের বিচারের বিরোধিতাকারী জামায়াত মানুষের ধর্মীয় অনুর্ভতিকে পুঁজি করে গণজাগরণ আন্দোলন নিয়ে বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছে বলেও অভিযোগ করছেন শাহবাগের তরুণরা।

গণজাগরণ আন্দোলন কোনো ধর্মীয় সংগঠনের বিরুদ্ধে নয় উল্লেখ করে শরিফ চৌহান বলেন, “শুধু যুদ্ধাপরাধীদের সর্বোচ্চ শাস্তি এবং যুদ্ধাপরাধের সঙ্গে সংশ্লিষ্টতার কারণে জামায়াত-শিবির নিষিদ্ধ করার দাবিতে আমাদের এই অহিংস আন্দোলন।”

হরতাল প্রত্যাহারের ঘোষণা হেফাজতের

হেফাজতে ইসলামের চট্টগ্রাম নগর শাখার সাধারণ সম্পাদক মঈনুদ্দীন রূহী রাতে বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে জানান, গণজাগরণ মঞ্চ সমাবেশ স্থগিত করায় তারাও হরতালের কর্মসূচি স্থগিত করেছেন।

এর আগে বিকালে নগরীর আন্দরকিল্লা শাহী জামে মসজিদের সামনে সমাবেশে বক্তব্যে গণজাগরণ মঞ্চের সমাবেশস্থলে ১৪৪ ধারা জারি করায় প্রশাসনকে ধন্যবাদ দেন তিনি।

ওই সমাবেশে গণজাগরণ মঞ্চের সমাবেশ প্রতিহত করতে কাফনের কাপড় ও কোরআন শরীফ হাতে নিয়ে রাজপথে নামার ঘোষণা দেন হেফাজত নেতারা।

চট্টগ্রামে ‘রক্তের বন্যা’ বইয়ে দেয়ার হুমকি দিয়ে হেফাজতে ইসলামের ৩১৩ কর্মী শহীদ হওয়ার শপথও নেন।

 

দেশের ওলামামাশায়েখরা বলেছেন, ইমাম নামধারী জামায়াতশিবিরের সমর্থকরা সাধারণ মানুষের মাঝে ইসলাম সর্ম্পকে ভ্রান্ত ধারণা সৃষ্টি করছে

ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগ সভানেত্রীর রাজনৈতিক কার্যালয়ে বুধবার ১৪ দলের নেতাদের সঙ্গে মত বিনিময়কালে ওলামা-মাশায়েখরা একথা বলেন।

ইসলামী ফ্রন্টের চেয়ারম্যান মাওলানা বাহাদুর শাহ বলেন, “সাধারণ মুসল্লিদের মাঝে জামায়াত-শিবির ইসলাম সর্ম্পকে যে ভ্রান্ত ধারণা সৃষ্টি করেছে, তা মানুষের কাছে পরিষ্কার করা দরকার।প্রয়োজনে দেশের প্রত্যেকটি মসজিদে ইমামদের পর্যবেক্ষণে সরকারের পক্ষ থেকে লোক পাঠাতে হবে।যাতে তারা জামায়াতের পক্ষে মিথ্যা বলে ধর্মপ্রাণ মুসলমানদের মাঝে বিভ্রান্তি সৃষ্টি করতে না পারে।”

তিনি আরো বলেন, “যে কোনো মূল্যে জামায়াত-শিবিরের সকল অপতৎপরতা আমাদেরকে রুখতে হবে।”

ইসলামী ফ্রন্টের চেয়ারম্যান জামায়াত-শিবিরের অপপ্রচারের বিরুদ্ধে জনগণকে সচেতন করতে আলেম সমাজকে নিয়ে একটি সমাবেশ করার ওপর গুরুত্বারোপ করে বলেন, এ সমাবেশের মাধ্যমে তারা ইসলাম সর্ম্পকে যে অপব্যাখ্য দিচ্ছে, তা সাধারণ মানুষের কাছে পরিষ্কার করা দরকার।

ইসলামী ঐক্যজোটের একাংশের মহাসচিব মাওলানা মনিরুজ্জামান রাব্বানি বলেন, “অন্যায় করে জামায়াত-শিবির অথচ এর গ্লানী বহন করতে হয় আমাদের। তাদেরকে আর সেই সুযোগ দেয়া যাবে না। যেখানে জামায়াত-শিবির সেখানেই তাদের প্রতিহত করতে হবে।”

ওলামা-মাশায়েখরা আরো বলেন, ‘জামায়াত-শিবির নিশ্চিত না হওয়া পর্যন্ত সারাদেশে কোনো ওলামা-মাশায়েখকে গ্রেপ্তার করা যাবে না- এ নিশ্চয়তা দিলে আমরা সারাদেশের মসজিদে মসজিদে ওলামা-মাশায়েখ মঞ্চ তৈরি করে জামায়াত-শিবিরকে প্রতিহত করবো।’

একইসঙ্গে জামায়াত-শিবিরের পক্ষে থেকে সাধারণ মানুষের মাঝে ইসলাম সম্পর্কে যে অপব্যাখ্যা দেয়া হচ্ছে তার সঠিক ব্যাখ্যা জনগণের সামনে তুলে ধরতে পারবেন বলে তারা মত প্রকাশ করেন।
বৈঠকে সারাদেশ থেকে আসা ওলামা-মাশায়েখদের বিভিন্ন সংগঠনের নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

এছাড়া আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম, প্রচার সম্পাদক হাছান মাহমুদ, গণতন্ত্রী পার্টির সাধারণ সম্পাদক নুরুর রহমান সেলিম, গণআজাদী লীগের সভাপতি আব্দুস সামাদ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

জামায়াতে ইসলামী ধর্মের নামে দেশের মানুষকে ভুল বোঝাচ্ছে বলে মন্তব্য করেছেন চট্টগ্রামের জামেয়া আহমদীয়া সুন্নিয়া মাদ্রাসার অধ্যক্ষ মাওলানা মোহাম্মদ জালালউদ্দিন আল কাদেরী
তিনি বলেছেন, যুদ্ধাপরাধের মামলায় মৃত্যুদণ্ডাদেশ পাওয়া জামায়াত নেতা দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদী বিভিন্ন সময়ে ওয়াজ মাহফিলে ইসলামের ভুল ব্যাখা দিয়েছেন।

চট্টগ্রামের ১০ আলেমকে হত্যার ষড়যন্ত্র ফাঁস হওয়ার পরিপ্রেক্ষিতে বুধবার সংবাদ সম্মেলন করে এসব বিষয় তুলে ধরেন মাওলানা জালালউদ্দিন। ওই তালিকায় অধ্যক্ষ জালালউদ্দিনের নাম রয়েছে প্রথমে।

আলেমদের হত্যা ষড়যন্ত্রের প্রতিবাদে বৃহস্পতিবার চট্টগ্রামে মানববন্ধনের কর্মসূচি ঘোষণা করা হয় এই সংবাদ সম্মেলন থেকে। সেইসঙ্গে আলেমদের হত্যাচেষ্টার মূল পরিকল্পনাকারীদের চিহ্নিত করে তাদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি ও ওলামাদের নিরাপত্তার দাবি জানানো হয়।

গত সোমবার চট্টগ্রামের মুরাদপুর থেকে এই ‘হিটলিস্ট’সহ ইসলামী ছাত্রশিবিরের আট কর্মীকে আটক করে পুলিশ।

চট্টগ্রামের বিবিরহাটে জামেয়া আহমদীয়া সুন্নিয়া মাদ্রাসায় আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে অধ্যক্ষ জালালউদ্দিন বলেন, “সাঈদী বিভিন্ন ওয়াজ মাহফিলের ইসলামের ভুল ব্যাখা দিয়ে দিয়েছেন। চট্টগ্রামের প্যারেড গ্রাইন্ডেও যখন তিনি বয়ান দিয়েছেন তিনি মহান আল্লাহ ও রসুলের (সা.) নামে আপত্তিকর ও মানহানিকর বক্তব্য দিয়েছেন। আমরা আলেম-ওলামারা বিভিন্ন সময় ইসলামের স্বার্থে এসবের প্রতিবাদও করেছি।”

মাওলানা জালালউদ্দিন বলেন, ধর্মের ভুল ব্যাখ্যা নিয়ে বিভিন্ন সময়ে তারা সাঈদীর সঙ্গে কথা বলারও চেষ্টা করেছেন। কিন্তু ওই জামায়াত নেতা কখনো কথা বলতে রাজি হননি।

শিবিরের ওই ‘হিটলিস্টের’ অন্য নয় আলেম হলেন- উপাধ্যক্ষ ছগির আহমেদ ওসমানী, শায়খুল হাদীস ওবায়দুল হক নঈমী, মোহাদ্দেস আশরাফুজ্জামান কাদেরী, ফকিহ ওসিউর রহমান, মাওলানা আবুল কাশেম নুরী, ফকিহ আবদুল ওয়াজেদ, মুফতি ইউনূস, মাওলানা তাওহিদ ও পাহাড়তলীর নেছারিয়া আলিয়া মাদ্রাসার অধ্যক্ষ জয়নাল আবেদিন জুবায়ের।

যুদ্ধাপরাধীদের সর্বোচ্চ শাস্তির দাবিতে আন্দোলনরত গণজাগরণ মঞ্চের কর্মী ব্লগার আহমেদ রাজীব হায়দার হত্যাকাণ্ডে জড়িত অভিযোগে ছয়জনকে গ্রেপ্তারের পর আট ব্লগারকে হত্যার আরেক পরিকল্পনা উদ্ঘাটিত হয়, যার পেছনেও শিবিরের এক নেতা রয়েছে বলে পুলিশ জানিয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে নিজেদের অবস্থান তুলে ধরে জালালউদ্দিন বলেন, “আমরা কোনো রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত না। ইসলামের সেবাই আমাদের কাজ। জামায়াতকে আমরা ইসলামী সংগঠন মনে করি না। ইসলামের নামে তারা মানুষকে ভুল বুঝাচ্ছে, বিভ্রান্ত করছে।”

স্বাধীনতাবিরোধী এ রাজনৈতিক দলকে নিষিদ্ধ করা না করা সরকারের ব্যাপার মন্তব্য করে অধ্যক্ষ বলেন, আইন তার নিজের গতিতে চলবে। সাঈদীর বিচার আইন অনুযায়ী হবে।

“আইনের প্রতি আমরা শ্রদ্ধাশীল। আইন নিজের হাতে তুলে নেয়ার কথা ইসলামেও নেই”, বলেন মাওলানা জালালউদ্দিন।

তিনি জানান, সাঈদীর রায়ের পর সারাদেশে জামায়াত-শিবিরের তাণ্ডব এবং চট্টগ্রামের ১০ আলেমকে হত্যার ষড়যন্ত্রের প্রতিবাদে বৃহস্পতিবার সকালে নগরীর মুরাদনগর থেকে বিশ্বরোড হয়ে বারেক বিল্ডিং পর্যন্ত মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করা হবে।

দেশজুড়ে জামায়াত-শিবিরের তাণ্ডব প্রসঙ্গে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, “ইসলামের দৃষ্টিতে সংখ্যালঘুরা রাষ্ট্রের আমানত। মানুষ যে ধর্মেরই হোক তার জানমালের ওপর আক্রমণ করা যাবে না।”

সংবাদ সম্মেলনে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন আঞ্জুমান এ রহমানিয়া আহমদিয়া সুন্নিয়া ট্রাস্ট্র চট্টগ্রামের জ্যেষ্ঠ ভাইস প্রেসিডেন্ট মোহাম্মদ মহসিন, সেক্রেটারি জেনারেল মোহাম্মদ আনোয়ার হোসেন, মাদ্রাসার উপাধ্যক্ষ ছগীর ওসমানী, মুফতি ওবাইদুল হক নঈমী, মুফতি সৈয়দ অছিয়র রহমান প্রমুখ।

দেওয়ানবাগীর ভন্ডামি

১লা মার্চ ৯টি ইসলামী দল কামরাঙ্গীরচর হাফেজিয়া মাদ্রাসায় শাহবাগে আন্দোলনকারী ব্লগারদের নাস্তিক বলে ফতোয়া দেয়। এদের কারনেই সারা দেশে আগুন জ্বলছে। ৮তারিখে ব্লগারদের মৃত্যুদন্ডের দাবিতে মসজিদ থেকে বিক্ষোভ মিছিল।

দলগুলো হলোঃ ইসলামী ঐক্যজোট, চরমোনাই পীর, বাংলাদেশ খেলাফত মজলিশ (প্রিন্সিপাল হাবিবুর রহমান), খেলাফত মজলিশ (ইসহাক),খেলাফত আন্দোলন, জমিয়াতুল উলামায়ে ইসলাম, নেজামে ইসলামী পার্টি, খেলাফতে ইসলামী ও ফরায়েজী আন্দোলন।

দাবিঃ সংবিধানে ‘আল্লাহর উপর পূর্ণ আস্থা ও বিশ্বাস’ কথাটি পুনঃস্থাপন ও কোরান-সুন্নাহবিরোধী সব আইন বাতিল; শাহবাগ আন্দোলনে নেতৃত্ব দেয়া নাস্তিক ব্লগারদের শাস্তি; আলেম-ওলামা-মাদ্রাসাছাত্র ও তৌহিদী জনতার উপর হামলা-দমন-গনহত্যা বন্ধ; গ্রেপ্তারকৃতদের মুক্তি; মসজিদে প্রতিবন্ধকতা বন্ধ করা; আল্লাহ-রাসুল-ইসলামের অবমাননার জন্য মৃত্যুদন্ডের বিঁধান রেখে আইন পাশ করা; কাদিয়ানিদের অমুসলিম ঘোষনা করা; ইসলামবিরোধী শিক্ষা ও নারীনীতি বাতিলসহ ১৫দফা।

এদের সাথে এই সম্মেলনে যোগ দেয় আহমেদ শফি, মহাসচিব জুনায়েদ বাবুনগরী, নায়েবে আমীর মহিবুল্লাহ, জামিয়া ইসলামিয়া পটিয়ার মহাপরিচালক আব্দুল হালিম বোখারী, ঈমান ও দেশরক্ষা আন্দোলনের আহ্বায়ক নূর হোসাইন কাসেমী, ইসলামী ঐক্যজোটের চেয়ারম্যান আব্দুল লতিফ নেজামী, মহাসচিব ফয়জুল্লাহ, খেলাফত মজলিশের আমির মুহাম্মদ ইসহাক, নেজামে ইসলাম পার্টি (একাংশ) সভাপতি ইজহারুল ইসলাম চৌধুরি, ইসলামী আন্দোলনের আমির ও চরমোনাই পীর সৈয়দ রেজাউল করিম, জমিয়তে উলামায়ে ইসলামের মহাসচিব মুহাম্মদ ওয়াক্কাস, খেলাফত আন্দোলনের মহাসচিব জাফরুল্লাহ খান, বাংলাদেশ খেলাফত মজলিশের নায়েবে আমির আব্দুর রব ইউসুফী, মুফতি আমিনীর ছেলে ও খেলাফতে ইসলামির আমির আবুল হাসনাত আমিনী।

চট্টগ্রাম গণজাগরণ মঞ্চকে হুমকি দেওয়া হেফাজতে ইসলামী ও জামাত শিবিরের মধ্যকার সম্পর্কটি জানতে নিচের লিখাটা অবশ্যই মনোযোগ দিয়ে পড়ুন –

“হেফাজতে ইসলাম” নাকি যুদ্ধাপরাধীদের বিচার চায়, তাদের একমাত্র সমস্যা নাকি নাস্তিকরা… লক্ষ্য করুণ, বন্ধুরা একটু লক্ষ্য করুনঃ

যুদ্ধাপরাধীদের পুনর্বাসনে প্রচুর টাকা ঢালা একটি এনজিও হচ্ছে রাবেতা আল ইসলামী, যার কান্ট্রি হেড ছিল জামাত নেতা রাজাকার মীর কাসেম আলী।

রাবেতার অঙ্গ সংগঠন মাসিক আল-হক্ব পত্রিকা, এই পত্রিকার প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান সম্পাদক এবং রাবেতা আলমে আল ইসলামীর বর্তমান বাংলাদেশ ব্যুরো প্রধান “আল্লামা সুলতান যওক নদভী”। আর এই “আল্লামা সুলতান যওক নদভী” হচ্ছেন হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশ-এর নায়েবে আমীর।

এবার বুঝেন, কি বিচারই না তারা চান!!!

প্রত্যেকটা লাইনের একাধিক রেফারেন্স দেয়া হল, যার প্রায় সবগুলো জামাত সমর্থিত পত্রিকার লিংক নিজের চোখে পরখ করে নিন দয়া করে।

**
পয়েন্ট নাম্বার একঃ “মীর কাসেম রাবেতা আল ইসলামীর কান্ট্রি হেড”

“…. ছাত্র শিবিরের প্রথম কেন্দ্রীয় সভাপতি হয় মীর কাশেম আলী। এরপর রোহিঙ্গা পুনর্বাসনের নামে “রাবেতা আল ইসলামী” গড়ে তুলে। কক্সবাজারে এই রাবেতার মাধ্যমে কোটি কোটি টাকা আসে। “রাবেতা আল ইসলামী”র বাংলাদেশের কান্ট্রি ডিরেক্টর পদে ছিল কাসেম আলী। কক্সবাজারে রোহিঙ্গা মুসলিম শরণার্থীদের সাহায্যের নামে আনা এই টাকায় রাবেতা হাসপাতালও করা হয়েছে। যেখানে ইসলামী জঙ্গিসহ রোহিঙ্গা ইসলামী জঙ্গীদের প্রশিক্ষণ দেওয়া হতো বলে অভিযোগ রয়েছে। রোহিঙ্গা জঙ্গিদেরকে দেশে প্রশিক্ষণ ও বিদেশে পাঠিয়েও প্রশিক্ষণ দেওয়ার ক্ষেত্রে মীর কাসেম আলী সহায়তা করেছে বলে বিভিন্ন সূত্র জানিয়েছে। আর এই রাবেতার মাধ্যমে আসা কোটি কোটি টাকা দিয়ে জঙ্গিবাদে অর্থ সহায়তা এবং জামাতে ইসলামীকে অর্থনৈতিকভাবে শক্ত ভিতের ওপর দাঁড় করানোর জন্য মীর কাসেম আলী মুখ্য ভূমিকা পালন করেছে এমন তথ্য রয়েছে দেশের বিভিন্ন গোয়েন্দা সংস্থার কাছেও। …..”

তথ্যসূত্র :
মুক্তিযুদ্ধ কোষ/৩য় খন্ড (সম্পাদক : ড.মুনতাসীর মামুন)

*
“….. সৌদি ও মধ্যপ্রাচ্যের মুসলিম দেশগুলোর অর্থনৈতিক সাহায্যপুষ্ট ‘রাবেতা আল ইসলামী’ নামে একটি এনজিও বাংলাদেশের কান্ট্রি ডিরেক্টর পদ লাভ করেন এই জামাত নেতা রাজাকার মীর কাসেম আলী। …….”
তথ্যসূত্র :
http://www.amarblog.com/mamun311/posts/150639

*
এছাড়া গণজাগরণ মঞ্চ থেকে “True History Of Liberation War 1971” এবং “স্লোগান’৭১”এর পক্ষ থেকে বিলিকৃত লিফলেটে “রাবেতা আল ইসলামী”-এর অঙ্গ সংগঠন “রাবেতা-তাওহিদ ট্রাস্ট”-কে জামায়াত ও শিবিরের সদস্য দ্বারা পরিচালিত প্রতিষ্ঠান হিসেবে চিহ্নিত করে বর্জনের আহ্বান জানানো হয়েছে।

**
পয়েন্ট নাম্বার দুইঃ “রাবেতা আল ইসলামী এনজিও’র বিনিয়োগের একটা পত্রিকা মাসিক আল-হক্ব“

*
এবার লক্ষ্য করুনঃ
মাসিক আল হক্বের প্রতিষ্ঠাতা ও প্রধান সম্পাদক, দারুল মা’আরিফ আল ইসলামিয়ার মহাপরিচালক ও রাবেতা আলমে আল ইসলামীর বাংলাদেশ ব্যুরো প্রধান আল্লামা সুলতান যওক নদভী

সুত্রঃ
*দৈনিক ইনকিলাবঃ “http://www.dailyinqilab.com/details_news.php?id=92422&&+page_id=+5
*দৈনিক নয়া দিগন্তঃ “http://www.dailynayadiganta.com/new/?p=122600
*সাপ্তাহিক সোনার বাংলাঃ “http://www.weeklysonarbangla.net/news_details.php?newsid=8506

পয়েন্ট নাম্বার তিনঃ “মাসিক আল-হক্বের সম্পাদক এবং রাবেতা আলমে আল ইসলামীর বাংলাদেশ ব্যুরোর বর্তমান প্রধানই হেফাজতে ইসলামের নায়েবে আমীর”

এই আল্লামা সুলতান যওক নদভী হচ্ছেন হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশ-এর নায়েবে আমীর
সুত্রঃ
*দৈনিক সংগ্রামঃ “http://www.dailysangram.com/news_details.php?news_id=110214
*দৈনিক নয়া দিগন্তঃ http://www.amardeshonline.com/pages/printnews/2013/02/22/189070

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s