গত কয়েকদিনে জামায়াতের নেতাদের ডায়লগবাজি-দম্ভ বাড়ছেই। এদিকে জামায়াত-শিবির চক্রকে “প্রতিহত করতে” প্রধানমন্ত্রী-স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর গর্জন শুনেই যাচ্ছি। কিন্তু বাস্তবসম্মতভাবে এই স্বাধীনতাবিরোধী অশুভ শুক্তিকে কিভাবে নির্মূল করা যেতে পারে সেই তরিকা কিন্তু সরকার দিচ্ছেনা।

খুবই আফসোসের কথা, কেননা এই ফাঁকে জামায়াত আরো বেশী শক্তি সঞ্চয় করছে। সাথে তাদের অভিভাবক বিএনপি ও জোট তো আছেই।

যুদ্ধাপরাধের বিচারের বিরুদ্ধে কথা বলা, বিচার বন্ধ করে আসামীদের মুক্তির দাবি যদি দেশদ্রোহীতা হয়, তাহলে তথাকথিত মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন সরকার কেন পিছপা হচ্ছে?

সরকার কেন হরতাল ডাকতে দিল জামায়াতকে?

গোয়েন্দা সংস্থাগুলোর লাখ টাকা দামী অফিসারেরা কি ঘাস খায়? স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী যেহেতু গতকালই বললেন যে জামায়াত সমাবেশের অনুমতি চায়নি, সুতরাং তাদের তা করতে দেয়া হবেনা, তাহলে আজকে তারা যে একটা পাল্টা কর্মসূচী দেবে এটা তো সাধারনভাবেই বুঝার কথা। আর সেটা প্রকাশ্যে ঘোষোনা দেবার আগেই কেন সরকার কঠোরভাবে তা প্রতিহিত করতে পারলো না?

এত আফসোস কই রাখি!

Advertisements