আজকে প্রধানমন্ত্রী বললেন মিডিয়া অনেক মিথ্যা কথা লিখে, তারা কিছু বলেন না। আবার মিডিয়ার নাকি “প্রতিদিন সরকারের বিরুদ্ধে না লিখলে তাদের ভাত হজম হয় না।” ছি ছি শেখ হাসিনা, আপনি না আমাদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী!!!

এভাবে কথা বললেন আপনি!!!

ক্ষমতার সর্বোচ্চশৃঙ্গে থেকে আপনি যদি এভাবে বলেন তবে আপনার অনুসারীরা কি করবে? তাদের তো উৎসাহিত করলেন। সেক্ষেত্রে আপনার আরেকটি স্পষ্ট ভাষায় বলা উচিত ছিল। কেননা, বাধা না দিলে তো যা লেখা হবে তাই সত্য বলে গন্য হবে, পরে আপনাকে পস্তাতে হবে।

তাছাড়া আপনি বঙ্গবন্ধুর মেয়ে এইটা আপনার ভুলে গেলে চলবেনা, সবার উপদেশ শুনে বিবেচনা করে সিদ্ধান্ত নেয়া আপনার উচিত।

মানুষ আপনাকে এত ভোট দিয়ে ক্ষমতায় বসালো অনেক আশা নিয়ে। জনগনের জীবন যাপন নিয়ে মিথ্যা বাহাদুরি করে তার ফল ভাল হবে না, নির্বাচনের ফলাফলেই টের পাবেন আপনার কথা কেউ বিশ্বাস করে কিনা।

মিডিয়া সার্বিকভাবে জনগনের কথার প্রতিফলন প্রকাশ করে। (দলীয় মিডিয়ার কথা বলছিনা।)

আসলে কথা বলার সময় উনাকে কেউ থামায় না তো, প্রশ্নও করতে পারেনা, তাই যা খুশি বলে যান। এইজন্যেই উনাকে আমার মাঝে মাঝে মানসিকভাবে দুর্বল মনে হয়।

পুলিশের কার্যক্রমে, সাংবাদিক নির্যাতনসহ নানা ক্ষেত্রে ব্যর্থতায়, আর স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী-প্রতিমন্ত্রীর গাধামির কারনে গত কয়েকদিনের জমে থাকা ক্ষোভ কুয়েত না কাতার থেকে ফিরে আজ তিনি উজাড় করে দিলেন সবার মাথায়। আবারও তিনি তার পছন্দ করা মন্ত্রীদের হয়ে সাফাই গাইলেন। সেখানে একটা সেমিনারে বুক ফুলিয়ে বলে আসলেন ন্যায়বিচার আর সুশাসনের কথা। আর দেশে এসে জনগনকে, আপনার ভোটারদের এসব কি বলছেন আপনি!!!

বিএনপি সময়ে সাংবাদিককদের কথা বলছেন? এমন তো এখনও হচ্ছে। দেশের বিভিন্ন স্থানে সরকারদলীয় লোকদের কুকর্মের খবর দিয়ে অনেক সাংবাদিকই প্রানভয়ে থাকেন। ঢাকায় এই চাপ কম বলে উনি সারাদেশের উপর দিয়ে সেটা চালিয়ে দিলেন। কি যুক্তি!

গনহারে তিনি বললেন এই শহরে নাকি পত্রপত্রিকা, টিভি আর টক-শো দেখলে দেশের অন্যরকম চিত্র পাওয়া যায়। তাই নাকি??? তিনি তো বলবেনই! কারন মিডীয়ার সংবাদে সরকারের দুর্নীতি, ফাঁকিবাজি, চুরি-চামারি, প্রতারণা, অদক্ষতা সব প্রকাশ পেয়ে যাচ্ছে।

বিরোধী দলের লোকেরা টক-শোতে যাচ্ছেন এটা তারা মেনে নিতে পারছে না, আপনারা কেন টেবিলে আলোচনায় জিততে পারবেন না? সৎ হলে ভয় কিসের? আপনাদের কয়েকজন বড় নেতা তো নিয়মিতই যাচ্ছে। প্রায় সব টক-শোতেই বিভিন্ন দলের লোকজনকে ও বিশেষ করে অরাজনৈতিক, বিশেষজ্ঞ, আইনজীবী ও সাবেক আমলাদের এবং শিক্ষকদের নেয়া হয়। তারা কি সব গাধা, চাষাভূষো??? সব ভুল বলে? দেশের উল্টা চিত্র দেয়া মানুষকে? ভুল খবর প্রচার করে? হতাশাব্যঞ্জক বক্তব্য দিলেন আমাদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী।

Advertisements